সিলেট এমসি কলেজে নাক চেপে শিক্ষার্থীদের প্রবেশ করতে হয়


এমসি কলেজ প্রতিনিধি:: সিলেট এমসি কলেজে নাক চেপে শিক্ষার্থীদের প্রবেশ করতে হয়। কলেজের সামনে দীর্ঘদিন ধরে ময়লা আবর্জনা ফেলার জন্য ‘গ্রীণ সিলেট’ লেখা সংবলিত একটি ডাস্টবিন রাখা।

এই ডাস্টবিনের ঢাকনা খোলা থাকায় প্রতিনিয়ত দুর্গন্ধ ছড়ায়। এতে বিপাকে পড়তে হয় কলেজে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীসহ পথচারীদের।

আজ (মঙ্গলবার) কলেজ ক্যাম্পাসের বাইরে সরজমিনে দেখা যায়, এমসি শিশু প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিশু স্কুল ছুটির পর তাঁর মায়ের সাথে ক্যাম্পাস থেকে বের হচ্ছে। এসময় দেখা যায় শিশুটি নাক চেপে খোলা ডাস্টবিনের পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে।

এই প্রতিবেদকের সাথে অনেক শিশুর অভিভাবকের কথা হয়। তারা নাম না প্রকাশ করার শর্তে বলেন, ‘এই ডাস্টবিন সরিয়ে নিলে নাক চেপে আর এদিকে যেতে হবে না। এদিক দিয়ে চলাচল করলে বাচ্চারা অস্বস্তি বোধ করে।

১৪০০০ হাজার শিক্ষার্থী নিয়ে গড়ে ওঠা এমসি কলেজের সিংহভাগ ছাত্র-ছাত্রী ডাস্টবিনের পাশ দিয়ে চলাচল করেন। সড়কের অপর প্রান্ত থেকে কলেজ গেটে ঝুঁকি নিয়ে পার হতে হয় বিধায় অধিকাংশ শিক্ষার্থীই অনিচ্ছাকৃত ভাবে ডাস্টবিনের সামন দিয়ে চলাচল করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্নাতক ৩য় বর্ষের এক ছাত্র বলেন, ‘ডাস্টবিনের পাশ দিয়ে হাঁটলেই বমি বমি ভাব হয়। এই ডাস্টবিন সরিয়ে নিলে পরিবেশটা অনেক সুন্দর হবে।’

এ ব্যাপারে কলেজ অধ্যক্ষ নিতাই চন্দ্র চন্দ বলেন, ‘স্থানীয় কাউন্সিলরের কাছে আমরা একটা চিঠি পাঠাব। একটা উন্নতমানের ডাস্টবিন বসানোর কথা বলব, যাতে একটা ঢাকনা থাকে! ঢাকনা দিয়ে ডাস্টবিনের মুখ বন্ধ থাকলে এতে আর দুর্গন্ধ ছড়াবে না

Sharing is caring!

Loading...
Open