১৪ বছরের কারাদণ্ড পাল্টে দিয়েছে আইয়ুব ডাকাতকে


সুরমা টাইমস ডেস্ক ঃঃ আমার যৌবন কাল কেটেছে জেল খানায়। টানা ১৪ বছর জেল খেটে এ সময়ে এসে জীবনের অর্থ আজ বুঝতে পারছি। তাই আমি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছি। রিকশা চালিয়ে সংসার চালাই। স্থানীয়রা খারাপ চোখে দেখে বলে বাপ-দাদার ভিটে ছেড়ে এসেছি। রোজ থানায় গিয়ে হাজিরাও দিয়ে আসি।

এখন আর আমি খারাপ কাজ করিনা। ভবিষ্যতে কোন অপরাধ করব না। বরং আমার সামনে যদি কেউ অন্যায় অপরাধ করে তাহলে তাকে বাধা দিব। পরিবর্তন ডটকমকে কথাগুলো বলছিলেন ডাকাতি মামলায় ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করে বের হওয়া ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার আইয়ুব আলী (৫৫) ওরফে আইয়ুব ডাকাত।

তিনি উপজেলার কাঁচেরকোল ইউনিয়নের মধুদাহ গ্রামের আব্দুর রউফ মোল্লার ছেলে।

এলাকায় অনেকেই আইয়ুব ডাকাত বলে চেনে তাকে। ২ সন্তানের জনক আইয়ুব আলীর সন্তানরাও এখন স্বাবলম্বী। জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ সময় জেল খানায় কেটেছে তার। বর্তমানে তিনি সকল প্রকার অন্যায় অপরাধ থেকে দুরে থেকে রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

জানা যায়, আইয়ুব আলী শহরের নতুন কোর্ট এলাকায় একটি ডাকাতি মামলায় ২১ বছর আগে জেলে যায়। ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করে ৭ বছর আগে মুক্তিপান।

এরপর থেকে আর গ্রামে ফেরেনি তিনি। লোকলজ্জায় বাবার পৈতৃক ভিটা ছেড়ে সদর উপজেলার ঝিনুকমালা আবাসনে বসবাস করছেন।

এরপর থেকে আইয়ুব আলী সকল প্রকার অন্যায় কাজ থেকে দুরে থেকে রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

আইয়ুব আলী পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, অন্যায় কাজ অনেক আগেই ছেড়ে দিয়েছি। তবুও কিছু মানুষ আমাকে খারাপ চোখে দেখে। তাইতো প্রতিদিন ঝিনাইদহ সদর থানায় এসে হাজিরা দিই। সদর থানার ওসি এমদাদুল হক স্যার খুব ভালো মানুষ। তিনি আমাকে আরও ভালোভাবে চলার পরামর্শ দিয়েছেন। আমি চাই তার পরামর্শ অনুযায়ী বাকি জীবনটা সৎ ও নিষ্ঠার সাথে কাটাতে।

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ৭ বছর আগে ডাকাতির মামলায় ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করে বের হন আয়ুব আলী।

তিনি তারপর থেকে রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন।

সম্প্রতি আয়ুব আলীর গ্রাম থেকে তার বিরুদ্ধে চুরি করার অভিযোগ আসে থানায়। এরপর তাকে থানায় আসতে বলা হয়। আয়ুব আলী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন ‘আমি গ্রামেই থাকি না’। তিনি আমার সামনে ওয়াদা করেছে তিনি আর খারাপ কাজ করেন না এবং করবেনও না।

তাই তিনি কি কাজ করছেন এটা নিশ্চিত হওয়ার জন্য তাকে প্রতিদিন রিকশা নিয়ে থানায় এসে দেখা করে যেতে বলা হয়।

তিনি নিয়মিত থানায় দেখা করে যান।

Sharing is caring!

Loading...
Open