ক্ষুব্ধ বিয়ানীবাজার ছাত্রদল

নিজস্ব প্রতিনিধি:: বিয়ানীবাজার উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের একাংশ পাল্টা কমিটি গঠন করেছে। পদবঞ্চিতদের গঠিত এ পাল্টা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ কমিটির বেশিরভাগই বিবাহিত এবং অছাত্র বলে অভিযোগ উঠেছে। গঠিত এ কমিটি নিয়ে ক্ষুব্ধ ও তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন অনেকেই। তাছাড়া পদবঞ্চিত ও বিদ্রোহীদের প্রস্তাবিত ওই কমিটিতে জেলা কর্তৃক নবগঠিত কমিটির দায়িত্বশীলদের রাখা হয়েছে বিভিন্ন পদে।

জানা যায়, গতকাল সোমবার (২৬শে ডিসেম্বর) বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল সিলেট জেলা শাখার সভাপতি সাঈদ আহমদ ও রাহাত চৌধুরী মুন্না এক যৌথ বিবৃতিতে মেয়াদোত্তীর্ণ বিয়ানীবাজার উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে উপরোক্ত ইউনিটগুলোর আংশিক পূর্ণাঙ্গ নতুন কমিটি গঠন করেন।

নবগঠিত কমিটিতে সদ্য বিলুপ্ত পৌর ছাত্রদলের আহ্বায়ক ফয়েজ আহমদকে সভাপতি, এনামুল ইসলাম এনামকে সাধারণ সম্পাদক এবং সাহেদ আহমদকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে উপজেলার আংশিক কমিটি; আইনুল আবেদিনকে সভাপতি, আহসান জামিলকে সাধারণ সম্পাদক এবং জাবেদ আহমদকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে পৌর ছাত্রদলের আংশিক কমিটি; ওলিউর রহমান ওলিকে সভাপতি, আক্তার হোসেন লিমনকে সাধারণ সম্পাদক ও ফাহিম আহমদকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে কলেজ ছাত্রদলের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

এ কমিটি ঘোষণার পরের দিন আজ মঙ্গলবার নবঘোষিত কমিটিকে পকেট কমিটি আখ্যা দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে পদবঞ্চিতরা এবং এ কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন কমিটি ঘোষণার দাবি জানান তারা। তবে জেলার নেতারা ঘোষিত কমিটি কেন্দ্রের নির্দেশে ঘোষণা করা হয়েছে জানালে বিদ্রোহীরা কেন্দ্রের সঙ্গে যোগাযোগ করে ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবি জানান।

আর তাদের ইন্ধন দিচ্ছেন উপজেলা বিএনপির দায়িত্বশীলরা- এমন অভিযোগ নবঘোষিত কমিটির। তবে তাদের এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে উপজেলা বিএনপি। এদিকে গত রোববার বিয়ানীবাজার উপজেলা ও পৌর বিএনপির সমর্থন নিয়ে পাল্টা কমিটি গঠন করে তা প্রস্তাব আকারে কেন্দ্রে প্রেরণ করেছে উপজেলা ছাত্রদলের বিদ্রোহী গ্রুপ। তাদের দাবি, বিয়ানীবাজারে ছাত্রদলের কমিটি নিয়মবহির্ভূতভাবে করা হয়েছে। এটি একটি পকেট কমিটি। তাই এ পকেট কমিটির বিরুদ্ধে তারা পাল্টা কমিটি গঠন করে কেন্দ্রে প্রেরণ করেছে।

এ বিষয়ে প্রস্তাবিত কমিটির উপজেলা সভাপতি ইমদাদুর রহমান ইমন বলেন, টাকার বিনিময়ে বিয়ানীবাজারে ছাত্রদলের তিনটি ইউনিটের পকেট কমিটি করা হয়েছে। এখানে উপজেলা বিএনপির কোনো মতামতই নেয়া হয়নি। তাই আমরা উপজেলা ও পৌর বিএনপির সমর্থন নিয়ে এ কমিটি গঠন করেছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্রোহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক ময়নুল রশিদ বলেন, কেন্দ্রে প্রেরণের জন্য উপজেলা ছাত্রদলের তিনটি ইউনিটের যে কমিটি প্রস্তাব আকারে গঠন করা হয়েছে তাতে সিনিয়র-জুনিয়র মানা হয়নি। তাছাড়া ওই কমিটির মূল পদবিধারীরাই বিবাহিত এবং তাদের ছাত্রত্ব নেই। অথচ তারা নিজের ইচ্ছামতো মনগড়া কমিটি তৈরি করেছে। যা ছাত্রদলের গঠনতন্ত্রের পরিপন্থী।

Sharing is caring!

Loading...
Open