ভিনদেশী রোবট `সোফিয়া`কে নিয়ে হৈ চৈ, আড়ালেই থেকে গেল দেশে তৈরি রোবট ‘বন্ধু’

সারা দেশে যখন রোবট সোফিয়াকে নিয়ে হৈ চৈ, তখন আড়াল থেকে যেন হাসছে দেশে তৈরি রোবট বন্ধু। তিন বন্ধুর উদ্যোগে তৈরি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন এ রোবটটি প্রশ্নের উত্তর দিতে সোফিয়ার থেকেও কম সময় নেয়।

শুধু তাই নয়, সোফিয়া যেখানে কথা বলে ইংরেজিতে, বন্ধু রোবট সেখানে কথা বলে ইংরেজি এবং বাংলা উভয় ভাষায়। ‘ও’ লেভেল পড়ুয়া তিন বন্ধু মিলে দেশেই তৈরি করেছে এ রোবটটি। তাদের প্রতিষ্ঠান ইনফরমেশন টেকনোলজি ভিলেজ এই রোবটির মালিক।

Posted by Gazi Ronny on Sunday, December 10, 2017

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭ তে রোবট সোফিয়াকে নিয়ে যখন উচ্ছ্বাস। ঠিক তার পাশের ছাউনিতেই প্রচারবিহীনভাবে দাঁড়িয়ে ছিল রোবট ‘বন্ধু’। নাজমুস সাকিব, সাইফুর রহমান ও জান্নাতুল নাইম অর্ণব নামের তিন বন্ধু মিলে এ রোবটটি তৈরি করেছেন বলে এর নামও দিয়েছেন ‘বন্ধু’।

রোবটটির অন্যতম নির্মাতা নাজমুস সাকিব জানান, ‘রোবটটির সামনে একটি মুঠোফোন রয়েছে। যার মাধ্যমে খুব সহজেই তার সাথে কথা বলা ব্যক্তিটির ছবি নিতে পারে সে। বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন শুনে উত্তর দিতে পারে। তার কাছে কোন তথ্য জানতে চাওয়া হলে সেটারও উত্তর দিতে পারে। যদি কোন প্রশ্নের উত্তর তার কাছে না থাকে তবে সে গুগলে সার্চ করে উত্তর বলে দিতে পারে।’

বন্ধু রোবট তৈরির পেছনের গল্প বলতে যেয়ে তিন বন্ধু জানালেন, ‘চালকবিহীন গাড়ির কথা শুনে তারাও নতুন কিছু তৈরি করার চিন্তা করেন।

তারপর দুই বছর ধরে তারা চেষ্টা চালান। বছর দেড়েক আগে সোফিয়ার আবিষ্কার খবর জানার পর তারা আরো উৎসাহিত হন। অবশেষে তারা নিজ উদ্যোগে তৈরি করেন ‘বন্ধু’। এটি তৈরি করতে তাদের ব্যয় হয়েছে মাত্র ২৫ হাজার টাকা। তবে পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এটিকে আরো উন্নত করতে করা যাবে বলে জানান তারা।

কয়েকজন দর্শনার্থী জানান, রোবটটি দেখে খুবই ভাল লেগেছে। তবে সবচেয়ে বেশি ভাল লেগেছে যখন জেনেছি এটি দেশে তৈরি এবং বাংলায় কথা বলতে পারে। তবে দেশের মিডিয়ায় এটি নিয়ে তেমন কোন প্রচার না থাকায় হতাশা ব্যক্ত করেন তারা। ‘বাড়ির গরু ঘাটার (বাড়ির সামনে জন্মানো) ঘাস খায় না’ অবস্থার সাথে তুলেন করেন তারা।

Sharing is caring!

Open