আইনজীবী নিয়োগের ক্ষমতা নেই হানিপ্রীতের

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: মামলা লড়ার জন্য নিজের পক্ষে আইনজীবী নিয়োগ করার মতো টাকা নেই ভারতের বিতর্কিত ও ধর্ষক ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিমের কথিত পালিত কন্যা হানিপ্রীত ইনসানের কাছে।

দু’জন শিষ্যকে ধর্ষণের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত রাম রহিমকে কারাগার থেকে ছিনিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা এবং সহিংসতার মাস্টারমাইন্ড হিসেবে থাকার অভিযোগে হানিপ্রীত পুলিশি হেফাজতে আছেন।

ধর্ষণের দায়ে ২০ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে রাম রহিমের। সাজা ঘোষণার কয়েকদিন পর অভিযোগের তীর নিজের দিকে দেখে উধাও হয়ে যান হানিপ্রীত। পরে হানিপ্রীতকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

আম্বালা কেন্দ্রীয় কারা কর্তৃপক্ষের কাছে লেখা এক চিঠিতে হানিপ্রীত জানান, নিজের পক্ষে আইনজীবী রাখার মতো কোনো অর্থ তার কাছে নেই। ইতোমধ্যেই মামলার চার্জশিট জমা পড়েছে। শিগগিরই শুনানি শুরু হবে। ৭ ডিসেম্বর শুনানি শুরুর দিন নির্ধারণ রয়েছে।

তিনি আরও জানান, তার তিনটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করে রেখেছে তদন্তকারীরা। সে কারণে ওই অ্যাকাউন্টগুলো থেকে কোনো টাকা তুলতে পারছেন না তিনি। নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তোলার ব্যাপারে অনুমতিও চেয়েছেন হানিপ্রীত। যাতে করে সেই টাকা দিয়ে তিনি আইনজীবী রাখতে পারেন।

রাম রহিমের সাজার খবরে হরিয়ানা, চান্দিগড়ে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়লে আড়ালে চলে যান হানিপ্রীত। বিভিন্ন সময়ে শোনা গেছে তিনি হরিয়ানা, পাঞ্জাব, দিল্লি এবং নেপালে আত্মগোপনে ছিলেন।

ডেরা সাচ্চা সৌদায় তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ কনডোমে, গর্ভ নিরোধক ট্যাবলেট উদ্ধার এবং গণকবর থাকার আলামত পাওয়া যায়। পরে বেশ কয়েকটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়। তার মধ্যে হানিপ্রীতের তিনটি অ্যাকাউন্টও ছিল।

বিশেষ তদন্ত দলের দাবি, সহিংসতায় দেড় কোটি রুপি খরচ করেছেন হানিপ্রীত। তবে রাম রহিমকে উদ্ধারের পরিকল্পনা ভেস্তে গেছে। এমনকি তার ২০ জনের মত সহচর এখনও পলাতক রয়েছেন।

রাম রহিমের মুখপাত্র আদিত্য ইনসানকে এখনও দেখা যায়নি। তাছাড়া কারাগারে আছেন হানিপ্রীতের কাছের ১৫ জন। ফলে হানিপ্রীত কার্যত রিক্তহস্ত হয়ে পড়েছেন।

সূত্র:- ইন্ডিয়া টুডে

Open