ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পেলো সিলেটের ঐতিহ্যবাহী শীতলপাটি বুনন শিল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক:: ইউনেস্কোর বিশ্ব নির্বস্তুক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় যুক্ত হয়েছে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী শীতলপাটি বুনন শিল্প।

আজ বুধবার (৬ই ডিসেম্বর) দুপুরে ইউনেস্কোর বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

দক্ষিণ কোরিয়ায় ইউনেস্কোর দ্বাদশ আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বাংলাদেশ সময় ১টা ৩২ মিনিটে বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলের শীতলপাটি বুননের ঐতিহ্যগত হস্তশিল্পকে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ নির্বস্তুক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছে। দক্ষিণ কোরিয়ার জেজু দ্বীপে অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর নির্বস্তুক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সংরক্ষণে গঠিত আন্তর্জাতিক পর্ষদ বাংলাদেশ সরকারের শীতলপাটিবিষয়ক প্রস্তাবটি অনুমোদন করে।

১২ সপ্তাহব্যাপী সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে যোগ দিয়েছে আট সদস্যের প্রতিনিধি দল। জাতীয় জাদুঘরের সচিব শওকত নবীর নেতৃত্বে দলে আরও আছেন জাদুঘরের কিপার শিখা নূর মুন্সী, ডেপুটি কিপার আসমা ফেরদৌসী। প্র্যাকটিশনার হিসেবে সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন সিলেটের দুজন প্রসিদ্ধ শীতলপাটিশিল্পী গীতেশ চন্দ্র দাশ ও হরেন্দ্র কুমার দাশ।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের বাউলসংগীত ইউনেস্কোর প্রথম স্বীকৃতি লাভ করে। পরবর্তী সময়ে ২০১৩ সালে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী জামদানি বুননশিল্প লাভ করে এই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। এর পর ২০১৬ সালে ইউনেস্কোর এ তালিকায় যুক্ত হয়েছে চারুকলার মঙ্গল শোভাযাত্রা। এ ছাড়া অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণকে বিশ্বপ্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি দেয় ইউনেস্কো।

Sharing is caring!

Loading...
Open