নিরাপত্তাহীনতায় সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মুরারীচাঁদ কলেজ

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সিলেটের ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে সন্ধ্যা নামলেই তরুণ-তরুণীর অবাধ যাতায়াত। নেশাখোরদের আড্ডা। আর ছিনতাইকারীদের অভয়ারণ্য। এসব ঘটনায় ইমেজ নষ্ট হচ্ছিল ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজের। এ কারণে বিকাল ৫টার পর এমসি ক্যাম্পাসে অবস্থানে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। প্রায় এক মাস আগে থেকেই কলেজ কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে ক্যাম্পাসে এই কড়কড়ি আরোপ করা হয়।

এরপরও ঘটনার কমতি নেই। বিকাল হলেই নানা ঘটনায় বিতর্কিত হয়ে উঠে এমসির ক্যাম্পাসের কর্মকাণ্ড। গত মঙ্গলবার ক্যাম্পাসে এক ছাত্রকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। আর এই ঘটনার পর আতঙ্ক নেমে আসে ক্যাম্পাসে। এর আগে এমসি কলেজের পুকুরপাড়ে কলেজ ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে কুপিয়েছিল শাবির বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম। গাছগাছালি ঘেরা টিলাময় এই ক্যাম্পাসে বিকাল হলেই পর্যটকদের ভিড় জমে। কিন্তু অনিরাপদ হয়ে উঠেছে সিলেটের এমসি কলেজে ক্যাম্পাস।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন- ক্যাম্পাসে এমন কোনো অপরাধ নেই যা ঘটে না। বিকাল হলেই পরিবেশ নোংরা হয়ে ওঠে। তরুণ-তরুণীদের ভিড় বাড়ে ক্যাম্পাসে। কখনো কখনো সন্ধ্যা পেরিয়ে গেলেও তরুণ-তরুণীরা ক্যাম্পাস থেকে বের হয় না। এতে করে এমসি ক্যাম্পাসের স্বাভাবিক পরিবেশ নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। অসামাজিক কাজেরও অভিযোগ উঠে বিভিন্ন সময়। একই সঙ্গে দখলে থাকা টিলাগড় বলয়ের একটি গ্রুপের বখাটে কর্মীরা বিকাল হলেই এমসির ক্যাম্পাসে ভিড় জমায়। সন্ধ্যা নামার পরপরই তারা মাদকের নেশায় মেতে ওঠে। গাজা সেবনের নিরাপদ আস্তানায় পরিণত হয় ক্যাম্পাস।

পাশাপাশি নির্জন এলাকায় ঘটে ছিনতাই। এ অবস্থায় বিকাল ৫টার পর ক্যাম্পাসে অবস্থানের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে কর্তৃপক্ষ। এরপরও থেমে নেই ক্যাম্পাসের ঘটনা। স্থানীয়রা জানান- আগের মতোই চলছিল এমসির ক্যাম্পাস। যেকোনো সময় যে কেউ ক্যাম্পাসে অনায়াসে ঢুকতে পারে আবার বের হতেও পারে।

এদিকে- গত মঙ্গলবার দুপুরে এমসি কলেজের ক্যাম্পাসে সিলেট সরকারি কলেজের ছাত্র শাহজাহান আলমকে ছুরিকাঘাত করা হয়। প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি করে পুলিশ। ঘটনার পর পুলিশ হামলাকারীদের গ্রেপ্তারে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। নিরাপত্তা প্রসঙ্গে কলেজের অধ্যক্ষ নিতাই চন্দ্র চন্দ জানিয়েছেন- নানা কারণে এমসি কলেজের ক্যাম্পাসকে নিরাপদ করে গড়ে তোলা যাচ্ছে না। কলেজ কর্তৃপক্ষ এমসির ক্যাম্পাসকে নিরাপদ করতে চায়। কিন্তু কলেজের অনেক স্থানেই সীমানা প্রাচীর নেই।

এ কারণে কে কখন কোন দিকে ঢুকছে সেটি নির্ণয় করা কষ্টকর। তিনি বলেন- পুলিশ ফটক ও এমসি এলাকায় থাকে। আর কলেজ কর্তৃপক্ষ বিকাল ৫টা পর্যন্ত অবস্থানের সময় নির্ধারণ করে দেয়ায় পরিস্থিতি আগের চেয়ে স্বাভাবিক হয়েছে বলে জানান তিনি।

তবে- পুলিশ জানিয়েছে, এমসি ক্যাম্পাসকে নিরাপদ করতে হলে কলেজ কর্তৃপক্ষ উদ্যোগী হতে হবে। এজন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রশাসনিক কমিটি গঠন করে অভিযান চালাতে পারে। এতে পুলিশ কলেজ কর্তৃপক্ষকে সব সময় সহযোগিতা প্রদান করে যাবে।

সিলেট মহানগর পুলিশের শাহপরান থানার ওসি আক্তার হোসেন জানান- এমসি কলেজকে নিরাপদ করতে হলে সবার আগে পুরো ক্যাম্পাসকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনতে হবে। পাশাপাশি কঠোরভাবে বহিরাগতদের প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ, প্রশাসনিক বডি এবং পুলিশের নিয়মিত টহল জোরদার করতে হবে।

তিনি আরও বলেন- পুলিশ টিলাগড় ও এমসি কলেজ এলাকায় সব সময় পাহারায় থাকে। যখনই কলেজ কর্তৃপক্ষ সহযোগিতা চায়, পুলিশের পক্ষ থেকে সব করা হচ্ছে। এরপরও বাড়তি কিছু করতে চাইলে পুলিশ সব ধরনের সহযোগিতা করবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open