কোম্পানীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: প্রশাসনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে কোম্পানীগঞ্জের অনির্দিষ্টকালের সড়ক অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৪ টায় স্থানীয় পাড়ুয়া বাজারে আয়োজিত এক সমাবেশে এ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহারের ঘোষণা দেওয়া হয়। এরপর বিকেলে থেকে সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বৃহস্পতিবার সকালে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের আইনশৃংখলা কমিটির বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় কোম্পানীগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান বাছির মিয়াও উপস্থিত ছিলেন।

সভার এক পর্যায়ে সিলেটের জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল লেইছ জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের দায়ের করা মামলায় যারা নির্দোষ তাদের কোনোভাবে হয়রানি কিংবা অভিযুক্ত করা হবে না। তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জেলা প্রশাসক আশ্বাস প্রদান করেছেন।

তার এই ঘোষণার খবর উপজেলা চেয়ারম্যান মারফতে আন্দোলনে থাকা পাথর ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগের নেতাদের কাছে পৌঁছালে বিকেলে তারা সমাবেশ থেকে কর্মসূচি প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন।

কোম্পানীগঞ্জের আওয়ামী লীগ নেতা ও পাথর আমদানীকারক সমিতির সিনিয়র সদস্য শামীম আহমদ জানিয়েছেন, জেলা প্রশাসকের আশ^াসের প্রেক্ষিতে সবাই সিদ্বান্ত নিয়ে অবরোধ প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এর ফলে ফের যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন- পরিবেশ অধিদপ্তর ও কোম্পানীগঞ্জের প্রশাসন নিরপেক্ষ তদন্ত করলে অবশ্যই তাদের সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করা হবে।

ইউএনও আবুল লেইছ জানিয়েছেন, সবে মাত্র একটি এজাহার হয়েছে। সেটির তদন্তের পর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সুতরাং নির্দোষ যারা তারা অবশ্যই প্রশাসনের সহযোগিতা পাবে।

এর আগে গত বুধবার সকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ কর্মসূচি পালন করছিলেন কোম্পানীগঞ্জের ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতারা। তাদের অবরোধের কারনে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকার কারণে দেশের বৃহত্তম ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারিসহ ছোট-বড় আরো ৫টি কোয়ারিতে পাথর উত্তোলন বন্ধ ছিল। যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় এখনো কোম্পানীগঞ্জ ও ভোলাগঞ্জে হাজারো পাথরবাহী ট্রাক আটকা পড়ে। বৃহস্পতিবার স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও পাথর ব্যবসায়ীরা সকাল থেকে উপজেলার এম সাইফুর রহমান কলেজের সামনে সিলেট-ভোলাগঞ্জ সড়কে সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হয়। এ সময় এলাকার লোকজন বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। তারা অবিলম্বে পরিবেশের দায়ের করা মামলা ও ইউএনও আবুল লেইসকে প্রত্যাহারের দাবি জানান।

এদিকে, বিকেলে স্থানীয় পাড়ুয়া বাজারে আয়োজিত সমাবেশে উত্তর রণিখাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কালা মিয়ার সভাপতিত্বে বক্তারা বলেন, ‘কোম্পানীগঞ্জ হচ্ছে সিলেটের অক্সজেন। সরকার বছরে শত কোটি টাকার রাজস্ব পেয়ে থাকে। এখানে অবৈধ যে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে সেই পাথর থেকে রয়েলিটি আদায় করছে প্রশাসনও। সুতরাং অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করতে হলে আগে উপজেলা প্রশাসনকে রয়েলিটি আদায় বন্ধ করতে হবে। তারা ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতাদের উপর মামলার জন্য দায়ী করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল লেইসের কার্যক্রমকে।’ তারা বলেন, ‘আবুল লেইস দয়ারবাজার, কালাইরাগ, ধলাই নদী এলাকায় বিএনপি ও জামায়াতের লোকদের পাথর লুটপাটে সহযোগিতা করছেন। আর ওই সব পাথর সিন্ডিকেটের ইন্ধনে আমদানী ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতাদের উপর মামলা দায়ের করা হয়েছে।’

Sharing is caring!

Loading...
Open