বঙ্গবন্ধুর ভাষণ নিয়ে ইতিহাস বিকৃতি,ক্ষমা চাইল পাক দূতাবাস

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ঐতিহাসিক সেই ঘোষণার দাবিদার তিনিই। এই ইতিহাস মেনে নিয়ে ভুল তথ্যের ফেসবুক পোস্ট মুছে দিল ঢাকার পাকিস্তানি দুতাবাস। সেইসঙ্গে দুঃখ প্রকাশ করেছেন পাক হাইকমিশনার।

সম্প্রতি পাক হাইকমিশনের ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়। তাতে দাবি করা হয়েছিল, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান নাকি বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষক। এর জেরে চাঞ্চল্য ছড়ায় সারা বাংলাদেশে।

বাংলাদেশ সরকারের দাবি, শেখ মুজিবুর রহমানের হয়েই বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করেছিলেন জিয়াউর রহমান। ঐতিহাসিক এই অধ্যায়কে বিকৃত করে শুধুমাত্র জিয়াউর রহমানকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করা পাক দূতাবাসের ফেসবুক পেজে। বিতর্কিত পোস্ট কেন দিল পাক হাইকমিশন তা জানতে চেয়ে হাইকমিশনার রাফিউজ্জামান সিদ্দিকীকে ডেকে পাঠায় পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়।

তলব পেয়ে পাক দূত দেখা করেন পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সচিব (দ্বিপাক্ষিক ও কনস্যুলার) কামরুল আহসানের সাথে। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে পাকিস্তানী হাইকমিশনারকে বলা হয় যে ইতিহাস বিকৃতি করলে দু’দেশের সম্পর্ক খারাপ হবে এবং এ ধরনের ভুলের জন্য পাকিস্তানকে নি:শর্ত ক্ষমা চাইতে হবে।

পরে পাকিস্তানী হাইকমিশনারকে উদ্ধৃত করে বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় জানায়, ভিডিওটিতে ভুল তথ্য দেয়ার জন্য পাক দূতাবাস দুঃখ প্রকাশ করেছে।

১৯৭১ সালে পাকিস্তান থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পূর্ব পাকিস্তান তার স্বাধীনতার লড়াই মুক্তিযুদ্ধ শুরু করেছিল। সেই সময় বন্দি করা হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। দেশবাসীর জন্য তিনি যে বার্তা দিয়েছিলেন তার ভিত্তিতেই শুরু হয়েছিল লড়াই। পাকিস্তানি হামলার শুরু হলে শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে ১৯৭১ সালের ২৭শে মার্চ জিয়াউর রহমান চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা পত্র পাঠ করেছিলেন। তাঁর বার্তা রেডিও দ্বারা ছড়িয়ে পড়েছিল বিশ্বের সর্বত্র। তবে তিনি কোনওভাবেই স্বাধীনতার ঘোষক নন বলেই জানিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার।

Sharing is caring!

Loading...
Open