দেশের টাকা বদলে যাচ্ছে ভারতীয় রূপিতে!

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: যুবসমাজ দেশের সম্পদ। যুবসমাজ ছাড়া দেশের উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। এজন্য যুবসমাজকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করে মানব সম্পদে পরিণত করা সকলের উচিত। চোখের আড়ালে অনেক যুবসমাজ নানা অপকর্মে লিপ্ত হচ্ছে। পিতামাতার পাশাপাশি সচেতন মহল এব্যাপারে সর্তক থাকা খুবই প্রয়োজন। গোলাপগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে যুবসমাজ শীলং থেকে পরিচালিত ভারতীয় তীর খেলায় মেতে উঠেছে। আসক্তিময় এ খেলায় গোলাপগঞ্জের যুবসমাজ সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে। যুবসমাজের পাশাপাশি ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে উঠতি বয়সি যুবকরাও। এতে দেশের টাকা ভারতীয় রূপিতে বদলে যাচ্ছে।

তীর খেলায় অংশ নিচ্ছে উচ্চবিত্ত থেকে নিম্নবিত্ত পরিবারের বেকার যুবকরা। অনেক যুবক পরিবার-পরিজনকে নানাভাবে হয়রানি করে বাড়ী থেকে টাকা নিয়ে তীর খেলায় দিনরাত মগ্ন রয়েছে। এছাড়া প্রতিনিয়ত তীর খেলাকে কেন্দ্র করে হাতাহাতির ঘটনা থেকে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সূত্রপাত হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয়রা জানান, উপজেলার প্রতিটি স্পটে একজন করে এজেন্ট রয়েছে। এজেন্টদের মাধ্যমে খেলায় অংশগ্রহণ করে কেউ উপকৃত হচ্ছে আবার কেউ সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনির হাতে তীর খেলোয়াড়রা আটক হলেও কঠোর ব্যবস্থা না নেয়ার কারণে অপরাধীরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সম্প্রতি গোলাপগঞ্জের বিভিন্ন স্পটে ভারতীয় তীর খেলাটি বিস্তৃতি লাভ করছে। প্রশাসনের কিছু অসাধু ব্যক্তি তীর খেলার বিভিন্ন স্পট থেকে মাসোহারা আদায় করে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। কয়েকটি স্পটে ভারতীয় তীর খেলার পাওনা টাকা নিয়ে একের পর এক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এজন্য সচেতনমহল গভীরভাবে উদ্বিগ্ন রয়েছেন।

গোলাপগঞ্জ উপজেলায় ভারতীয় তীর খেলার স্পটগুলো হচ্ছে, গোলাপগঞ্জ বাজার চৌমুহনী, উত্তরবাজার, গোলাপগঞ্জ কদমতলীর নদীতীরবর্তী এলাকা, এমসি একাডেমি রোড, রাণাপিং বাজার, ধারাবহর বারকোট এলাকা, ভাদেশ্বর বাজার সংলগ্ন, ঢাকাদক্ষিণ বাজার, হেতিমগঞ্জ বাজার, বাঘা লালনগর ও বইটিকর।

এ ব্যাপারে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা অফিসার ইনচার্য একেএম ফজলুল হক শিবলী বলেন, তীর খেলা বন্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে আমরা কয়েকজনকে আটক করেছি এবং যারা এ খেলার সাথে জড়িত রয়েছে, তাদেরকেও আটক করতে চেষ্টা করছি।

Sharing is caring!

Loading...
Open