অশ্রুজলে শেষ বিদায় দেয়া হলো বিয়ানীবাজারের নিহত ৬ যুবককে

নিজস্ব প্রতিনিধি:: নরসিংদীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বিয়ানীবাজারের ৬ তরুণের জানাযার নামাজ আজ সকাল ১০টা ৫ মিনিটে বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। বিয়ানীবাজার পৌরসভার ব্যবস্থাপনায় জানাযার নামাজে অংশ নেন হাজার হাজার মানুষ। কলেজ প্রাঙ্গণে ছাড়িয়ে মানুষের ঢল ছড়িয়ে পড়ে আশপাশের সড়ক ও মার্কেটে। কলেজ রোডের মসজিদের সামনের অংশ থেকে কলেজ রোড, জামান প্লাজার সম্মুখিন, টিএন্ডটি রোড, সমবায় মার্কেট ও গোলাটিকর হাউজে জানাযার নামাজের বিস্তৃতি ঘটে।
সকাল ৯টার সময় থেকে ৬ তরুণের লাশ নিজ বাড়ি থেকে কলেজ প্রাঙ্গণের নির্দিষ্ট স্থানে আসতে শুরু করে। হাজার হাজার মানুষের ঢল সামাল দিতে বেগ পেতে হয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও স্বেচ্ছাসেবকদের। জানাযার নামাজে অংশ নিতে বিয়ানীবাজার উপজেলার সকল এলাকার মানুষের পাশাপাশি বড়লেখা, জকিগঞ্জ, কানাইঘাট, গোলাপগঞ্জসহ বিভিন্ন উপজেলার মানুষ অংশ নেন। এদিকে কলেজ ক্যাম্পাসে জানাজার নামাজে উপস্থিত ছিলেন গাড়ীতে থাকা একমাত্র জীবিত হাফিজ উদ্দিন। তাঁর মাথায় সামান্য আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে।
পৌরসভার মেয়র আব্দুস শুকুরের পরিচালনায় জানাযার পূর্বে সমবেদনা জানানোর আনুষ্ঠানিকতা বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা বিএনপি’র সভাপতি আবুল কাহের শামীম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাসিব মনিয়া, ইউএনও মু: আসাদুজ্জামান, জেলা যুবদলের সভাপতি আব্দুল মান্নান, সাবেক জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফয়সাল চৌধুরী, বিয়ানীবাজার উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি নজমুল হোসেন পুতুল ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিক আহমদ, জেলা পরিষদ সদস্য নজরুল ইসলাম ও এড. মুজিবুর রহমান, গোলাপগঞ্জের সাবেক পৌর মেয়র জাকারিয়া হোসেন পাপলু, জামান প্লাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আজাদ, শিক্ষামন্ত্রীর এপিএস দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল, পৌর বিএনপি’র সভাপতি আবু নাসের পিন্টু, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবাদ আহমদ, বিয়ানীবাজার প্রেস ক্লাবের সভাপতি আতাউর রহমান, আহত ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান, ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম প্রমুখ।
শোকাহত মানুষের ঢল অনুমান করে বিয়ানীবাজার উপজেরা ও থানা প্রশাসন পৌর শহরের প্রবেশের চার পথে কড়াকড়ি আরোপ করে। শহরের ভেতরে মোটর সাইকেল ব্যতিত কোন ধরনের যান ঢুকতে দেয়া হয়নি। পুলিশ কলেজ রোডেরর দাসগ্রাম, মেইন রোডের নিমতলা ও সুপাতলা এবং শারপার রোডের খাসাড়িপাড়া এলাকায় গাড়ি আটকে রাখে। দুপুর পর্যন্ত সব দোকান পাঠ বন্ধ রাখা হয়।
সকাল ১১টায় নিজ নিজ এলাকায় নিহতদের জানাযার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open