বৃহত্তর সিলেটে র‌্যাব-৯ এর একযুগ পূর্তি

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর মধ্যে এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। যাত্রা শুরুর পর থেকেই দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজে সাফল্যের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। র‌্যাবের নবম ব্যাটালিয়ন হিসেবে ২০১৫ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর সিলেটে যাত্রা শুরু করেছিলো র‌্যাব। সে যাত্রায় দেখতে দেখতে যোগ হয়েছে দীর্ঘ ১ যুগের ইতিহাস। এই ১২ বছরের র‌্যাব-৯ আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় অগ্রণী ভূমিকা ছিলো র‌্যাব-৯। বিগত দিনগুলোতে সিলেটে দায়িত্বপালনকারী কর্মকর্তারাও কোন বিতর্কের জন্ম দেননি। তারা নিষ্ঠা ও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানেও সে ধারা অব্যাহত আছে।

ইসলামপুরের পরিত্যাক্ত টেক্সটাইল মিলেই শুরু হয় র‌্যাব-৯ এর কার্যক্রম। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে দায়িত্বপূর্ণ এলাকা ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ, সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার এবং হবিগঞ্জ নিয়ে র‌্যাব-৯ গঠিত হয়ে প্রশাসনিক ও অপারেশনাল কার্যক্রম শুরু হয়।

র‌্যাবের সিনিয়র সহকারী পরিচালক ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান জানিয়েছেন- অতীতে দীপ্ত প্রতিজ্ঞা নিয়ে জঙ্গীবাদ দমনে প্রথমে ‘বাসাবো অভিযান’ সূচনা করেছিল এই র‌্যাব-৯। এরই ধারাবাহিকতায় সিলেটের সূর্য দীঘল বাড়ী, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা এবং গাজীপুরে সফল অভিযানের মাধ্যমে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় জঙ্গী নেতাদের গ্রেফতার করে এই ব্যাটালিয়ন; ফলে বাংলাদেশে জঙ্গীবাদের উত্থান অনেকটাই মুখ থুবড়ে পড়ে। পরবর্তীতে ২০১৩ সালের ১৮ই ডিসেম্বর র‌্যাব-৯ এর দায়িত্বপূর্ণ এলাকা বিভক্ত হয়ে ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা এবং কিশোরগঞ্জ জেলা নিয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-১৪ আত্মপ্রকাশ করে।

সিলেট বিভাগের ৪টি জেলা যথা-সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ নিয়ে র‌্যাব-৯ বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছে। র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-৯ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই জঙ্গি তৎপরতা দমন, সমাজের বিশৃংখলা সৃষ্টিকারী কর্মকান্ড দমন, মাদকদ্রব্য উদ্ধার, জাল টাকা উদ্ধার, ভিকটিম উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেফতার, বিভিন্ন ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা প্রদান এবং অবৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ী, মানব পাচারকারী, কুখ্যাত ডাকাত ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করে আসছে। জঙ্গী ও সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশ সরকার এর কঠোর অবস্থানের নীতির সাথে একমত হয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-৯ কাজ করে যাচ্ছে।

এছাড়াও সিলেটের আলোচিত আতিয়া মহলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ এ ভিকটিম উদ্ধারে র‌্যাব-৯ এর প্রত্যক্ষ সম্পৃক্ততা এবং পরবর্তীতে ‘অপারেশন ক্লিয়ার আতিয়া মহল’ ছিল র‌্যাব-৯ এর একটি উল্লেখযোগ্য অভিযান।

তাছাড়া সিলেটের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী শহীদ, এসএমপির তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী সুজন, সুনামগঞ্জের ট্রিপল হত্যা মামলার আসামী, অস্ত্র ব্যবসায়ী, মানব পাচারকারী, জাল টাকা ব্যবসায়ী গ্রেফতারসহ অপহৃত ভিকটিম উদ্ধারে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-৯ উল্লেখযোগ্য ও প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছে। ইতোমধ্যে র‌্যাব-৯ সময়ের পরিক্রমায় সফল ১২ টি বছর অতিক্রম করেছে।

র‌্যাব-৯ এর গত ১ বছরের অপারেশনাল কার্যক্রম ও চাঞ্চল্যকর উদ্ধারের উল্লেখযোগ্য হলো:

জঙ্গী ৪ জন, শীর্ষ সন্ত্রাসী ৪ জন, হত্যা মামলার আসামী ৭ জন, বিস্ফোরক দ্রব্য মামলার আসামী ২ জন, অস্ত্র মামলার আসামী ১৫ জন, বিভিন্ন মামলার সাজাপ্রাপ্ত ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী ১২৯ জন, মাদক ব্যবসায়ী ১৬৮ জন, ডাকাতি মামলার আসামী ১২ জন, ছিনতাইকারী ৬ জন, মলম পাটি ৩ জন, নকল স্বর্ণের বারসহ আসামী ৩ জন, জাল টাকার ব্যবসায়ী ৬ জন, মানব পাচারকারী ৯ জন, ভূয়া র‌্যাব সদস্য ৯ জন, গাড়ী চোর ৫ জন, অপহরণকারী ১০ জন, ধর্ষণকারী ৪ জন ও বিকাশ চক্রের প্রতারক ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়াও বিস্ফোরকদ্রব্য এক্সপ্লোসিভ পাওয়ার জেল ৫২ টি, ডেটোনেটর ৫০ টি, অস্ত্র দেশী/বিদেশী ১৯টি, গুলি ৪০ রাউন্ড, জঙ্গী লিফলেট ৯২৭ টি, জঙ্গী সংক্রান্ত ম্যাগাজিন ২৫ টি, স্বর্ণের বার ১৬ টি, দেশী/বিদেশী মদ ৮,৬৩৯ বোতল, ইয়াবা ট্যাবলেট ৩৪,৯৭৯ পিস, গাঁজা ৪২২ কেজি, হেরোইন ৭৮৮ গ্রাম, মাদক বিক্রয়লদ্ধ নগদ অর্থ ১৩,২৯,০০০/- টাকা, বিদেশী রুপি ২,১০৫০০/-, প্রাইভেটকার ৭ টি, চোরাই মোটর সাইকেল ১৩ টি, সিএনজি/পিকআপ ১১ টি, ১৮ জন ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়। বিভিন্ন সময়ে অবৈধ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে র‌্যাব-৯ এর সহায়তায় মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। এতে মোবাইল কোর্ট আইনে অবৈধ ব্যবসায়ীদের জরিমানা করা হয়। জরিমানাকৃত অর্থের পরিমান সর্বমোট প্রায় ৪৯,০০,০০০ টাকা। (সূত্র: র‌্যাব-৯ এর মিডিয়া উইং)

র‌্যাবের সিনিয়র সহকারী পরিচালক ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব-৯ এর ১২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করেছেন। ভবিষ্যতে দেশের আইন শৃংখলা রক্ষায় র‌্যাব-৯ জঙ্গীদমন, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড দমন, মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণসহ সরকার কর্তৃক অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করে যেতে সিলেটবাসীর সহোযোগিতা চেয়েছে র‌্যাব-৯ কর্তৃপক্ষ।

এদিকে র‌্যাব-৯ এর একযুগ পূর্তি উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার নগরীর একটি অভিজাত কনভেনশন হলে আয়োজন করা হয়েছে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালার।

Sharing is caring!

Loading...
Open