দেশকে এগিয়ে নিতে মেধাবীরাই মূল ভূমিকা রাখবে- মেয়র আরিফ

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন- “আমাদের নতুন প্রজন্মকে মেধাবী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। দেশকে এগিয়ে নিতে মেধাবীরাই মূল ভূমিকা রাখবে। কিছু গোষ্ঠী যাতে তাদেরকে বিপথগামী করতে না-পারে সেজন্য অভিভাবকদের প্রধান ভূমিকা নিতে হবে। কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতি বছর বিভিন্ন ফি বাড়াচ্ছে। আবার কিছু শিক্ষক স্কুলে পাঠদান করে বাড়িতেও শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়াচ্ছেন। আমরা এসব নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে চাই।”

তিনি বলেন- “সিলেটকে সুন্দর নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করছি। নগরীর মূল সড়কের বিদ্যুতের খুঁটি আন্ডারগ্রাউন্ড করার প্রজেক্ট অনুমোদিত হয়েছে। এখন টেন্ডারের পর কাজ শুরু হবে।”

প্রয়াত সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন- “সিলেটের উন্নয়নে সাইফুর রহমানের অবদান সিলেটবাসী চিরকাল মনে রাখবে। তাঁর কাছ থেকে অনেক কিছুই শিখেছি।”

মৌলভীবাজার সমিতি, সিলেটের উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা-২০১৭ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথাগুলো বলেন।

নগরীর ধোপাদিঘিরপাড়স্থ একটি কমিউনিটি সেন্টারে গতকাল শনিবার (১৪ই অক্টোবর) সন্ধ্যায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

মৌলভীবাজার সমিতি সিলেটের সভাপতি দেওয়ান তৌফিক মজিদ লায়েকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- লিডিং ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী এবং সিলেট অঞ্চলের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা পরিচালক প্রফেসর মো. হারুনুর রশিদ।

সমিতির বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন- সাধারণ সম্পাদক মো. রুস্তম খান। সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শাবিপ্রবি’র ডেপুটি রেজিস্ট্রার এ মাহবুব ফেরদৌসের সঞ্চালনায় অনষ্ঠানে স্বাগত বক্তব রাখেন- সংবর্ধনা বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক মো. সিকান্দার আলী।

উপদেষ্টামণ্ডলীর পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন- সিলেট শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর বাকী চৌধুরী, সাবেক এস.পি কাওছার আহমদ হায়দারী, সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল খালিক, সাদ ওবায়দুল লতিফ, প্রফেসর সৈয়দ আব্দুল ওয়াদুদ। কমিটির পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন- প্রফেসর ডা. মৃগেন কুমার দাস চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- এম.এ. গনি, অ্যাড. চৌধুরী আতাউর রহমান আজাদ, অধ্যাপক মবশ্বির আলী, সুব্রত শংকর দাস, অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের, আব্দুল মনাফ, কাওসার আহমদ, সৈয়দ এ.কে.এম. নজরুল ইসলাম, হাবিব আল নূর রাসেল প্রমুখ।

সংবর্ধিত শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে অনুভূতি ব্যক্ত করে বক্তব্য রাখেন- সামিন আল দাইয়ান, সব্যসাচী পুরকায়স্থ, ফেরদৌসি নাসরিন, মারজান আহমদ সিদ্দিকী ও সাবিহা মাহজাবিন সেতু। অভিভাবকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম, জালালাবাদ গ্যাসের ডি.জি.এম. কায়েছ আহমদ ও এস.এস.পি জুবের আহমদ।

অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করেন অ্যাড. বদরুল আহমদ চৌধুরী, আলীম উদ্দিন মান্নান, মো. মফিক আলী, অরুপ শ্যাম বাপ্পী, ইকবাল হোসেন সমর, সিদ্দিকী আফজাল জালাল।

কৃতি শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করেন রহিমা পারভীন মিলি। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা শামসুল ইসলাম আল-হাদী ও পবিত্র গীতা পাঠ করেন অরুপ শ্যাম বাপ্পী। -বিজ্ঞপ্তি

Open