শান্তিতে কেন নোবেল পুরষ্কার দেওয়া হয়নি গান্ধীজীকে?

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: বিশ্বকে পরমাণু অস্ত্র মুক্ত করতে উদ্যোগী সংস্থা ‘আই ক্যান’কে শান্তির জন্য নোবেল পুরষ্কারে ভূষিত করা হয়েছে শুক্রবার। বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় এখনও পর্যন্ত দুই ভারতীয় নোবেল পুরষ্কারে সম্মানিত হয়েছেন মাদার টেরেজা ও কৈলাস সত্যার্থী। তবে আশ্চর্যের বিষয় হল নোবেল শান্তি পুরষ্কারে এখনও পর্যন্ত নাম ঘোষণা হয়নি ভারতের জাতীর জনক মহাত্মা গান্ধীর। এই নিয়ে বিতর্কও কম হয় নি।

কুইন্ট নামক ইংরেজি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা গিয়েছে, শত বিতর্কের মাঝে প্রথম উত্তরটি দেন Oyvind Tonnesson৷ ১৯৯৯-এর পয়লা ডিসেম্বর নোবেল প্রাইজের ওয়েবসাইট প্রকাশিত “Mahatma Gandhi, the Missing Laureate” নামে একটি প্রতিবেদনে প্রথম উত্তরটি দেন তিনি। তাঁর প্রতিবেদন Oyvind Tonnesson লিখেছিলেন, ১৯৩৭-য়ে নোবেল শান্তি পুরষ্কারের জন্য গান্ধীর নাম অনুমোদন করা হয়েছিল। তবে নোবেল কমিটি জানিয়েছিল প্রচুর অনুগামী থাকা সত্ত্বেও গান্ধীর সমালোচক কম নেই। রাজনৈতিক নেতা হিসাবে গান্ধীর অবস্থান পরিবর্তনশীল।

এমনকি নোবেল কমিটির রিপোর্টে, উল্লেখ করা হয়েছিল গান্ধীর নেতৃত্বে ভারতে চলা স্বাধীনতা আন্দোলনের কথা। সেখানে ব্রিটিশদের সঙ্গে ভারতীয়দের রক্তক্ষয়ী লড়াইয়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া বিশেষ করে উল্লেখ করা হয়েছে ১৯২০-২১ এর চৌরি-চৌরার ঘটনার কথা। যেখানে একটি সম্পূর্ণ পুলিশ স্টেশনে আগুন লাগিয়ে দিয়েছিল গান্ধীর অনুগামীরা। গান্ধী অহিংস আন্দোলনের কথা বললেও ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন কোন ভাবেই অহিংস ছিল না বলে উল্লেখ করা হয়েছিল নোবেল কমিটির রিপোর্টে। এছাড়া ১৯৪৭-এ ভারত-পাকিস্তান দেশ ভাগের জন্য বহু সমালোচক দোষারোপ করেছেন গান্ধীকে। এই সমস্ত কিছুর উল্লেখ ছিল নোবেল কমিটির সেই রিপোর্টে।

জানা গিয়েছে, ১৯৪৮-এ গান্ধীজীর মৃত্যুর ঠিক দু’দিন আগে তাঁকে নোবেল শান্তি পুরষ্কার দেওয়ার জন্য ছটি আবেদনপত্র জমা পড়েছিল নোবেল কমিটিতে। তবে মৃত্যুর পরে কে বা কোন সংস্থা গান্ধীর নোবেল পুরষ্কার গ্রহণ করবে সেই বিষয়ে লিখিত কোন তথ্য ছিল না নোবেল কমিটির কাছে।

Open