একটি বাড়ী একটি খামারের মাধ্যমে দারিদ্রতাও দূর হবে, পুষ্টির চাহিদাও পুরন হবে-সিলেটে বিভাগীয় কমিশনার

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার ড.মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম বলেছেন ডিম উৎপাদনের দিকে আমাদেরকে মনযোগী হতে হবে। কারন ডিম আমরা সবাই খেতে চাই।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ একটি বাড়ী একটি খামারের মাধ্যমে আমরা যদি মানুষকে খামারের প্রতি উদ্ভোদ্ধ করতে পারি তাহলে আমাদের দারিদ্রতা ও দূর হবে অপর দিকে পুষ্টির চাহিদাও পুরন হবে।

ডিম প্রোটিনে ভরপুর একটি খাবার। অনেকে যদিও ডিম নিয়ে বিভিন্ন চিন্তায় পড়ে থাকে। তবুও ডিম অত্যন্ত কম দামের পুষ্টিকর খাবার হিসেবে পরিচিত। সহজলভ্য পুষ্টির উৎস হিসেবে ডিমের তুলনা কেবল ডিমই হতে পারে। আর ডিমে রয়েছে বেশ কিছু পুষ্টি উপাদান, যা দেহের ক্যালরি সরবরাহ থেকে শুরু করে নানা খাদ্যপ্রাণও সরবরাহ করে। তাই খামারের পাশাপাশি বাসা বাড়ীতে ও হাঁস মুরগি পালন করে ডিমের চাহিদা পুরন করা প্রয়োজন।

শুক্রবার সকালে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সিলেটে বিশ্ব ডিম দিবস উদযাপন উপলক্ষে বর্নাঢ্য র‌্যালী শেষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা গুলো বলেন তিনি। প্রাণী সম্পদ সিলেট বিভাগীয় উপ-পরিচালক ডা. মো. গিয়াস উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সদর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা বাসনা আক্তারের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি, এনিম্যাল ও বায়োমেডিকেল সায়েন্সেস ডীন অধ্যাপক ড. মো. রাশেদ হাসনাত, সিলেটের জেলা প্রশাসক মোঃ রাহাত আনোয়ার।
অতিরিক্ত জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. রফিকুল ইসলাম এর শূভেচ্ছা বক্তব্যের মাধ্যমে সূচিত অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পোল্টি বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মো. ইউসুফ মিয়া। আমন্ত্রীত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুলতান আহমদ, পোল্টি হেচারীর মালিক ইমরান হোসেন।

এদিকে সকাল ১০টা থেকে ১টা পর্যন্ত জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বিশ্ব ডিম দিবস উপলক্ষে ৩টাকা হারে ডিম বিক্রি করা হয়।

Sharing is caring!

Loading...
Open