বিশ্বনাথে ডাকাতি মামলায় আরো দুই ডাকাত গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিনিধি:: সিলেটের বিশ্বনাথে ‘হিন্দু বিবাহ নিবন্ধক’ সুরঞ্জিত দাশের উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের কাঠলীপাড়া গ্রামস্থ বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় আরোও ২ ডাকাতকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোররাতে পৃথক অভিযানে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের বৈরাগীরগাঁও গ্রামের হাছন খাঁর পুত্র সুজন আহমদ ওরফে সেবুল খাঁ ও বালাগঞ্জ উপজেলার নসিওরপুর গ্রামের মৃত তৈয়ব উল্লাহর পুত্র আবুল হোসেন রিপন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার (২রা অক্টোবর) দিবাগত রাতে উপজেলার ‘হিন্দু বিবাহ নিবন্ধক’ সুরঞ্জিত দাশের বাড়িতে ডাকাতির সংগঠিত হয়। পরদিন মঙ্গলবার রাতে সুরঞ্জিত দাশ বাদি হয়ে বিশ্বনাথ থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর ওই রাতেই অভিযান চালিয়ে বৈরাগীরগাঁও গ্রামের আসন খাঁ’র পুত্র ও হত্যা, ডাকাতি-দস্যুতা’সহ একাধিক মামলার আসামী বাবুল খাঁকে গ্রেপ্তার করে থানা পুলিশ। বাবুলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার রাতে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার নাজির বাজার এলাকা থেকে ডাকাত আবুল হোসেন রিপনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

আর রিপনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার দিবাগত ভোর রাতে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা থেকে ডাকাত সুজন আহমদ ওরফে সেবুল খাঁকে গ্রেপ্তার করে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ।

গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক প্রেস কনফারেন্সে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ স্থানীয় সাংবাদিকদের সামনে হাজির করেন গ্রেপ্তারকৃত ডাকাত আবুল হোসেন রিপন ও সুজন আহমদ ওরফে সেবুল খাঁকে। এসময় দুজনই (ডাকাত) ‘হিন্দু বিবাহ নিবন্ধক’ সুরঞ্জিত দাশের বাড়িতে সংগঠিত ডাকাতির ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেন।

ওই রাতে কিভাবে ১১ জনের ডাকাত দল নিয়ে সুরঞ্জিতের বাড়িতে ডাকাতি করেছেন তারও বর্ণনা দেন।

বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের বৈরাগীরগাঁও গ্রামের (স্থানীয়) ৮ জনের একটি ডাকাত দল রয়েছে এবং এক রাতে ডাকাতি করলে একেক জন ডাকাত ৫ হাজার টাকা করে পান বলে সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেছেন গ্রেপ্তারকৃত ডাকাত সুজন আহমদ ওরফে সেবুল খাঁ।

‘রিপন ও সেবুল’ ডাকাত গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেছেন, গ্রেপ্তারকৃত ডাকাত আবুল হোসেন রিপনের বিরুদ্ধে একাধিক ডাকাতি মামলা ও সুজন আহমদ ওরফে সেবুল খাঁর বিরুদ্ধে সিলেটের বিভিন্ন থানায় ৬টি ডাকাতি মামলা রয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open