জুড়ীতে মাথা ন্যাড়া করে স্ত্রীর ওপর স্বামীর বর্বরতা!

স্ত্রী রাবিয়া বেগমকে (৩৫) মারধর করা স্বামী বদই মিয়ার কাছে নতুন কিছু নয়। বিয়ের পর প্রায় আট বছরের সংসারে রাবিয়া বেগম বিভিন্ন অজুহাতে সয়ে আসছেন স্বামীর অমানুষিক নির্যাতন। তবে এবার বদই মিয়া মারধর করে ক্ষান্ত হননি। স্ত্রীর মাথা ন্যাড়া করে দিয়েছেন। এছাড়াও স্ত্রীর শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে লাগিয়ে দেন মরিচের গুঁড়া।

শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাতে মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের শুকনাছড়া গ্রামে ভয়াবহ এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার (৩ অক্টোবর) বিকেলে স্বামীর বিরুদ্ধে জুড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ করছেন নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূ।

থানা পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের শুকনাছড়া গ্রামের বাসিন্দা বদই মিয়ার (৪৫) সাথে ২০১০ সালে বিয়ে হয় পাশের কুলাউড়া উপজেলার দানাপুর গ্রামের রাবিয়া বেগমের। বদই মিয়া স্থানীয় এক ব্যক্তির পোষা হাতির মাহুত। তাঁদের সাড়ে পাঁচ বছর বয়সী এক ছেলে আছে। বিয়ের পর থেকেই নানা অজুহাতে, তুচ্ছ কারণে বদই মিয়া স্ত্রীর ওপর মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন চালাতেন। বিভিন্ন সময় নির্যাতনের শিকার হলেও সন্তানের মুখ চেয়ে স্বামীর বাড়ি ত্যাগ করেননি রাবিয়া। ২৮ সেপ্টেম্বর স্বামীর নির্যাতনের শিকার হয়ে পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন রাবিয়া। পরে স্থানীয় লোকজনের মধ্যস্থতায় স্ত্রীকে ঘরে ফিরিয়ে নেন বদই মিয়া।

কিন্তু বাড়ি ছেড়ে যাওয়ায় বদই ক্ষিপ্ত হয়ে শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাতে স্ত্রীকে বসত ঘরের খুঁটির সাথে পিছমোড়া করে বেঁধে রাখেন। একপর্যায়ে ব্লেড দিয়ে তাঁর মাথার চুল কেটে মাথা ন্যাড়া করে দেন। এছাড়া শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে লাগিয়ে দেন মরিচের গুঁড়া। এ সময় চিৎকার করলে বদই তাঁকে ও তাঁর ছেলেকে মেরে ফেলার হুমকি দেন। বাড়িতে বদইয়ের মা ও ছোট ভাই থাকলেও তাঁরা এ বিষয়ে কোন প্রতিবাদ করেননি। পরদিন সকালে বদই রাবিয়ার বাঁধন খুলে দেন।

সোমবার (২ অক্টোবর) বদই মিয়া বাড়ির বাইরে কাজে যান। এ সুযোগে রাবিয়া বাড়ি থেকে পালিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের বাড়িতে গিয়ে তাঁকে বিষয়টি জানান। চেয়ারম্যান তাঁকে পুলিশের কাছে অভিযোগ করতে পরামর্শ দেন। রাবিয়া বর্তমানে বাবার বাড়ি কুলাউড়ায় রয়েছেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জালাল উদ্দিন বুধবার (৪ অক্টোবর) বিকেলে বলেন, ‘গৃহবধূ থানায় এসে স্বামীকে (বদই মিয়া) অভিযুক্ত করে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। যৌতুক ও নির্যাতন আইনে মামলা হচ্ছে। গৃহবধূর কাছ থেকে (রাবিয়ার) নির্যাতনের বর্ণনা শুনে গা শিউরে ওঠে। এটা বর্বরতা। বদইকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’

Sharing is caring!

Loading...
Open