চুনারুঘাটে ব্যক্তি উদ্যেগে ৫০ ফুট দৈর্ঘ্যের কাঠের সেতু নির্মিত

নিজস্ব প্রতিনিধি:: হবিগঞ্জ চুনারুঘাটের ৫ নং শানখলার ইউপি ৩নং ওয়ার্ডে লালচান্দ-দেউন্দি রোডের চিনাইবিলের সম্মুখে কাঠের সেতুর নির্মিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের নিজস্ব অর্থায়নের নির্মিত হয়েছে এ সেতু । যার ফলে প্রায় ৪০ হাজারের ও বেশী জনসাধারণের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হবে।

গত বুধবার সকাল১০টায় ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের উপস্থিতিতে কাঠের সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।এ সময় ৫নং শানখলার ইউপির স্থানীয় আওয়ামীলীগ সাঃ সম্পাদক আবুল কালাম চৌধুরী এখলাছ, সাইফুল ইসলাম চৌধরী লিটন,মান্নান মাষ্টার স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ পরিচালক আঃ মান্নান, চা-বাগানের সহকারী ব্যবস্থাপক হিমালা শাহা,চুনারুঘাট পৌর ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সম্রাট আহমেদ, আওয়ামীলীগ নেতা জীবন গোপ, স্থানীয় বাসিন্দা রনি এয়াদাব,দুলাল মিয়া, জলফু মিয়াসহ আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গ-সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন স্তরের ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। প্রায় ৫০ ফুট দৈর্ঘ্যের সেতুটি বিকাল ৫ টায় স্থানীয় জনসাধারণসহ স্কুল শিক্ষার্থীরা চলাচল শুরু করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘ ৫ বছর যাবৎ ছড়ার উপর ব্রিজটি পরিত্যাক্ত জরাজীর্ণ অবস্থায় ছিল। সম্প্রতি টেন্ডার হয়েছে বলে নতুন করে নির্মাণ করা হবে মুলে পরিত্যাক্ত ব্রিজটি ভেঙ্গে ফেলেন স্থানীয় চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফজলুর রহমান তরফদার সুবজ। ভাঙ্গার অনেক দিনপরও ব্রিজ নির্মাণ কাজের কোন প্রক্রিয়া দেখা যাচ্ছে না।

লালচান্দের দিকে যাচ্ছেন ৪ জন পথচারি বলেন, এটি দীর্ঘদিনের সমস্যা ছিলো। বর্ষায় চলাচল করা খুবই কষ্টকর ছিলো। ছাত্র-ছাত্রীরা নিয়মিত স্কুল কলেজে যেতে পারতো না । শুকনো সময়ে ততটা বিড়ম্বনা হতো না। ট্রাক্টর বা সিএনজি নদী পানি বেয়ে চলে।

আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের প্রসকিউটর সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন,” এই দেশ আমাদের বাংলাদেশ। এই দেশের মানুষের কষ্ট আমাদের সবার কষ্ট। তাই আমি মনে করি এই কষ্ট আমাদেরই লাগব করতে হবে। সেচ্ছাশ্রমই কষ্ট দূর করার একমাত্র উপায়।
জনসাধারণের সেবায় কাজ করতে চাই। কাঠ দিয়ে সেতু তৈরির কাজ হয়েছে । স্থানীয় জনসাধারণের পারাপারের কিছুটা হলোও স্বস্তিবোধ হবে । এই সেতুর মাধ্যমে গাড়ি না চললেও যাতায়াত করা সম্ভব হবে। নিরাপদ হাঁটাযাত্রার নতুন ক্ষেত্র হয়েছে ।”

ছাত্র-ছাত্রীদের সবচেয়ে বেশি উপকৃত হচ্ছে জানিয়ে ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন আরো বলেন, “বিভিন্ন স্কুলে শিক্ষার্থীরা নিরাপদ যাতায়াত প্রক্রিয়া সহজ হয়েছে। বৃষ্টি হলেও তারা বিদ্যালয়ে যেতে পারবে।”

Sharing is caring!

Loading...
Open