শাহজালাল (রহ.) মাজারের ওরশ উপলক্ষে এসএমপি র ৪ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা

নিজস্ব প্রতিবেদক : হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজারের ৬৯৮তম বার্ষিক ওরশ শনিবার (১২ আগষ্ট) থেকে শুরু হচ্ছে। ওইদিন সন্ধ্যায় পশু জবাইয়ের মাধ্যমে শুরু হবে ২দিন ব্যাপী ওরস। আনুষ্ঠানিকতা চলবে রোববার গভীর রাত পর্যন্ত। রোববার রাত ৩টা ১৫ মিনিটে আখেরী মোনাজাতের পর শিরনী বিতরনের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পন্ন হবে ওরশ। এদিকে ওরসকে ধারনা করা হচ্ছে লক্ষাধিক মুসল্লিদের উপস্থিতিতে জমজমাট থাকবে সিলেট নগরী।

ওরশ উপলক্ষে সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে দরগা কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ পুরো মাজার এলাকায় ৪ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নিয়েছে। যে কোন ধরনরে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশর পক্ষ থেকে গুরুত্বপূর্ণ ১০টি পয়েন্টে থাকবে চেকপোষ্ট। নিরাপত্তার স্বার্থে মাজারের ভেতরে ও বাইরে মোট ৩৬ টি নতুন করে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানো হয়েছে।
এদিকে নিরাপত্তার স্বার্থে ও সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণভাবে ওরশ পালনের লক্ষে নগরীর পাঁচটি সড়কে যানচলাচলে দুই দিনের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ। আগামীকাল শুক্রবার দুপুর ২টা থেকে ওরশ চলাকালীন সময়ে আম্বরখানা থেকে চৌহাট্টা, দর্শন দেউড়ী থেকে ঝর্ণারপাড়, রাজার গলি থেকে মাজারেরর প্রধান গেইট এবং মিরের ময়দানস্থ হোটেল হেরিটেজ থেকে ঝর্ণারপাড়, আলিয়া মাদ্রাসা সড়কস্থ পূবালী ব্যাংক গেইট থেকে মিনার গেইট পর্যš অস্থায়ীভাবে যান চলাচল বন্ধ থাকবে।

শনিবার (১২ আগস্ট) সকালে ওরসের প্রধান কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে মাজারে ভক্ত আশেকানদের গিলাফ ছড়ানোর পাশাপাশি শফিনা খতম, কোরানখানি, জিকির আজকার, এরপর ভক্তিমূলক গজল ও রাত তিনটায় আখেরি মোনাজাত ও শিরনি বিতরণ।

হযরত শাহজালাল মাজার কমিটি সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবছর ১৯ ও ২০ জিলক্বদ এ আধ্যাত্মিক সাধকের ভক্ত আশেকানরা বার্ষিক ওরসের আয়োজন করে থাকেন। এবার ৬৯৮তম ওরস অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ওরসে আগত অতিথিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশের পাশাপাশি ভক্ত আশেকানদের সমন্বয়ে প্রায় দেড় হাজার স্বেচ্ছাসেবক নিরাপত্তা কর্মী হিসেবে কাজ করবেন।
হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজারের খাদেম শামীম মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ওরসত ভক্ত আশেকানদের স্বাগত জানাতে দরগা কর্তৃপক্ষ প্রস্তুত। শুধু বৃষ্টি নিয়ে আমরা একটু উদ্বিগ্ন। বৃষ্টির কারনে আগতদের অনেক কষ্ট হচ্ছে। এবার ওরসে পুলিশকে সহযোগিতা করার জন্য ১৫০০ স্বেচ্ছাসেবক কর্মী থাকবে। মাজারের বাইরে নতুন করে ২০টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। মাজারের ভিতর লাগানো হয়েছে আরও ১৬টি ক্যামেরা। এছাড়া ওরস উপলক্ষে মেডিকেল টিমের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ বিভাগের আলাদা টিম মাজার এলাকায় সার্বক্ষণিক উপস্থিত থাকবে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মুসা বলেন, ওরশ উপলক্ষে ৪ স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলবে পুলিশ। ক্লোড সার্কিট ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। সাদা পোশাকের পুলিশও দায়িত্বরত থাকবেন। মাজারের গোটা এলাকা ঘিরে ১০ টি চেকপোষ্ট থাকবে।

Open