ছাতকে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ,ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত১০

নিজস্ব প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের ছাতকে মাসিক সমন্বয় সভা শেষে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এতে তিন ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা সদরের গোলচত্বরে এমপি মানিক সমর্থিত উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক উত্তর খুরমা ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ এবং পৌর মেয়র কালাম সমর্থিত সিংচাপইড় ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন মো. সাহেল ও তাদের লোকজনের মধ্যে মারামারির এ ঘটনা ঘটে।আহতদের মধ্যে রয়েছেন, উত্তর খুরমা ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ, সিংচাপইড় ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন মো. সাহেল, ছাতক সদর ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি বাবুল রায়, জিব্রান রহমান, খায়রুল হুদাসহ অন্তত ১০ জন।মারামারির ঘটনার পর থেকে এলাকায় মানিক ও কালাম গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। কালাম সমর্থকরা এ ঘটনার পর ছাতক উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এছাড়া মানিক গ্রুপের নেতাকর্মীরা বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ, ধারণ ও জাউয়া বাজার এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে।ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ জানান, ‘ইউপি চেয়ারম্যান সাহেল গত কয়েকদিন আগে সুনামগঞ্জ পুলিশ লাইনে মতবিনিময় সভায় অশ্লীল ভাষায় বক্তব্য দিলে আমি প্রতিবাদ করি। এর জের ধরে আজ বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ গোলচত্বরে পৌঁছলে সাহেলের নেতৃত্বে ৬/৭জন সন্ত্রাসী অস্ত্রসহ পরিকল্পিতভাবে আমার উপর হামলা করে।’ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন মো. সাহেল জানান, বিল্লাল চেয়ারম্যানের সাথে তার ইউনিয়নের একব্যক্তি দূর্ব্যবহার করেন। এঘটনার প্রতিবাদ করায় বিল্লাল চেয়ারম্যানের সমর্থকরা তাকে লাঞ্ছিত করার চেষ্টা করেন। তবে বিল্লাল চেয়ারম্যানের উপর কে বা কারা হামলা করেছে তা তার জানা নেই।ছাতক-দোয়ারাবাজার সার্কেলের এএসপি দুলন মিয়া জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ছাতক শহর, জাউয়া ও গোবিন্দগঞ্জে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open