ছাত্রলীগের দুই কর্মী কুুপানোর ঘটনায় শিক্ষক সহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেট নগরীর সোবহানীঘাটে ছাত্রলীগের দুই কর্মীকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার ঘটনায় ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আহত ছাত্রলীগকর্মী আবুল কালাম আছিফের বড় ভাই আবুল কালাম আফাজ বাদী হয়ে ৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ৩/৪ জনকে আসামী করে কোতোয়ালী থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন। যার নং-১৩ (০৮-০৮-১৭)।

মামলার এজাহারনামীয় আসামীরা হচ্ছে-নগরীর সবুজবাগের আক্কাছ আলী (৪০), নগরীর শাহজালাল উপশহরের এবাদুর রহমান (৩৫), নগরীর সোনারপাড়ার শিবির ক্যাডার আব্দুল ফাত্তাহ (২০), শাহজালাল উপশহরের আকিব (২২), একই এলাকার ছাকিব (২০), তাহমিদ (২৪) ও জাবেদ (২১)। আসামীদের মধ্যে জালালাবাদ ইউনিভার্সি সিটি কলেজের সহকারী শিক্ষক আক্কাছ আলী ও সহকারী শিক্ষক এবাদুর রহমান।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা জানান, পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।
উল্লেখ্য, গত সোমবার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে নগরীর সোবহানীঘাট এলাকার শিশু ক্লিনিকের সামনের রাস্তায় মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগের কর্মী ও সিলেট সদর উপজেলার পীরপুর টুকেরবাজারের নূরুল আমিনের ছেলে শাহীন আহমদ (২২) এবং শাহজালাল উপশহরের জালাল উদ্দিনের ছেলে জালালাবাদ ইউনিভার্সি সিটি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছাত্রলীগকর্মী আবুল কালাম আছিফকে (২০) ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। গুরুতর আহত শাহীনকে সোমবার বিকেলেই ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। তার একটি হাত ও একটি পা পুরোদমে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। আছিফ কলেজে অধ্যয়নরত এবং শাহীন কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী। তারা দুজনই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত।

এদিকে, জালালাবাদ ইউনিভার্সি সিটি কলেজের সাবেক ও বর্তমান দুই শিক্ষার্থীকে কুপানোর ঘটনায় কলেজ আগামী ৩ দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার কলেজ বন্ধ থাকার বিষয়টি জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক বাকি চৌধুরী। কলেজ কতৃপক্ষ জানায়- কলেজের পরিস্থিতি কিছুটা থমথমে। এ জন্যই আগামী ৩ দিন কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

Sharing is caring!

Loading...
Open