কানাইঘাটে সাইবার ক্রাইমের শিকার সাংবাদিক পত্নী,০৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা।

নিজস্ব প্রতিনিধি : কানাইঘাটে এক ওমান প্রবাসী যুবক কর্তৃক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, টুইটার ও হোয়াটস্অ্যাপ, ইমোতে এক সাংবাদিকের স্ত্রী সহ বিভিন্ন মহিলার ছবি বিকৃতি করে ছেড়ে দেওয়ার ঘটনায় সর্বত্র ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। সচেতন মহল এ ঘটনাকে সামাজিক অধঃপতনের সাথে তুলনা করে বলেছেন, এধরনের অপরাধ কর্মকান্ডের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। যেসব অপরাধীরা অন্যের মানহানি ও ব্লেকমেইলিং করে আপত্তিকর ছবি পোষ্ট দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার মধ্যদিয়ে এধরনের অপরাধ কর্মকান্ড প্রতিরোধে সবাইকে সোচ্চার ভূমিকা পালন করতে হবে বলে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আহাদ জানিয়েছেন।
জানা যায়, কানাইঘাট পৌরসভার নন্দিরাই গ্রামের মৃত আফতাব উদ্দিনের পুত্র সাইফুল ইসলাম কানাইঘাট বাজারের একজন দর্জি দোকানী ছিল। প্রায় বছর খানেক পূর্বে উক্ত দর্জি সাইফুল কৌশলে মিলেনিয়াম টিভির কানাইঘাট উপজেলা প্রতিনিধি ও সাপ্তাহিক কানাইঘাট বার্তা পত্রিকার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক সাংবাদিক আলিম উদ্দিন আলিমের স্ত্রীর ব্যক্তিগত এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনটি চুরি করে। মোবাইল ফোনের মেমোরিতে সাংবাদিক আলিম উদ্দিন আলিমের স্ত্রী ও তার আত্মীয় স্বজন মহিলাদের ছবি ছিল। মোবাইল চুরির বিষয়টি ধরা পড়লে দর্জি সাইফুল পরবর্তীতে নিঃশর্ত ক্ষমা চায়, তবে মোবাইল ফোনটি ফেরত না দিয়ে সে সময় ওমানে চলে যায়। সম্প্রতি ঈদ-উল-ফিতরের পর থেকে ওমান থেকে দর্জি সাইফুল বিভিন্ন নামে ফেইসবুক আইডি খুলে সাংবাদিক আলিম উদ্দিন আলিমের স্ত্রী সহ অন্যান্য মহিলাদের ছবি ফেইসবুকে ডিজিটাল ব্ল্যাকমেইলিং এর মাধ্যমে আপত্তিকর অবস্থায় চরম নোংরা ভাষা ব্যবহার করে ফেইসবুক, টুইটার, হোয়াটসঅ্যাপ, ইমোতে এবং অনেকের ফেইসবুক আইডিতে পোষ্ট করে আসছে। দর্জি সাইফুলের এমন নোংরা ব্ল্যাকমেইলিং এর ঘটনায় যেসকল মহিলারা আক্রান্ত হচ্ছেন বর্তমানে তারা সহ তাদের স্বজনরা মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন। দর্জি সাইফুলের বিরুদ্ধে এবং এর সাথে যারা জড়িত রয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গত শনিবার সাংবাদিক আলিম উদ্দিন আলিম বাদী হয়ে কানাইঘাট থানায় তথ্য প্রযুক্তি আইনে দর্জি সাইফুল সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। এছাড়া উক্ত মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো ১০/১২ জনকে আসামী করা হয়েছে। অভিযোগটি পাওয়ার পর বর্তমানে ওমান প্রবাসী ঘটনার মূলহোতা দর্জি সাইফুল সহ ঘটনার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে এব্যাপারে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কানাইঘাট থানার ওসি আব্দুল আহাদ নানা তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। ওসি আব্দুল আহাদ অপরাধী দর্জি সাইফুল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নতুন করে যাতে কোন ধরনের আপত্তিকর ছবি পোষ্ট দিতে না পারে এজন্য নানা উদ্যোগের পাশাপাশি প্রযুক্তিরও সাহায্য নিচ্ছেন। দর্জি সাইফুলের পরিবারের সদস্য ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সাথে কথা বলে কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছেন তিনি।
ওসি আব্দুল আহাদ জানিয়েছেন, বিকৃত করে সাংবাদিক আলিম উদ্দিনের স্ত্রী সহ অন্যান্য মহিলাদের ছবি ইন্টারনেটের মাধ্যমে সাইফুল ইসলাম নামে এক ওমান প্রবাসী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার ঘটনায় আমরা অপরাধিদের বিরুদ্ধে তৎপর রয়েছি। মূল ঘটনার নায়ক প্রবাসে থাকায় তার বিরুদ্ধে কি ধরনের আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া যায় এবং সে যাতে করে এ ধরনের নোংরামি ঘটনা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দিতে না পারে সেই চেষ্টা আমরা করে যাচ্ছি। এর পাশাপাশি এসব নোংরামি পোষ্টে যারা শেয়ার ও মন্তব্য করেছেন তাদেরকেও চিহ্নিত করে আটকের চেষ্টা চলছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই হুমায়ুন কবির জানান, অভিযুক্ত আসামীদের মধ্যে ব্ল্যাকমেইলিংকারী অপরাধি দর্জি সাইফুলকে আটক করতে ইন্টারপুলের সহযোগীতা নেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। এছাড়া দর্জি সাইফুল ইসলামের অপর সহযোগী যারা ফেইসবুকে সাংবাদিক আলিমের স্ত্রীর ছবি ব্ল্যাকমেইলিং ও খারাপ মন্তব্য করে ফেইসবুকে কমেন্ট ও শেয়ার করছে তাদেরকে আমরা আটকের চেষ্টা করছি। এছাড়া উক্ত অভিযোগের সাথে জড়িত অন্যান্যে আসামীদের ধরতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। তিনি উক্ত মামলার অন্যান্যে আসামীরা পলাতক থাকায় তাদেরকে আটক করতে বিলম্ব হচ্ছে। এজন্য পুলিশের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধি ও সচেতন মহলের সহযোগীতা কামনা করা হয়েছে।
সাংবাদিক আলিম উদ্দিন জানিয়েছেন, দর্জি সাইফুলের ডিজিটাল ব্ল্যাকমেইংয়ের শিকার আমার স্ত্রী ও অন্যান্য আত্মীয় স্বজনরা হয়েছেন। সামাজিকভাবে তিনি সহ তার স্বজনরা ভেঙ্গে পড়েছেন।
কানাইঘাট থানার ওসি আব্দুল আহাদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলিমের স্ত্রী অন্যান্য আত্মীয় স্বজন ও মহিলাদের মানহানিকর কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস বন্ধ করার জন্য আন্তরিক রয়েছেন বলে জানান।
এদিকে কানাইঘাটের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিধি এবং কানাইঘাটে কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ সহ উপজেলার সচেতন মহলের পক্ষথেকে সাংবাদিক আলিম ও তার আত্বীয় স্বজনদের ছবি বিকৃতিকারী ফেইসবুক সাইবার ক্রাইমারদেরকে অবিলম্বে গ্রেফতার করার জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open