পাহাড়ি ঢলে সিলেটের বিয়ানীবাজারের অর্ধশতাধিক গ্রাম প্লাবিত।

নিজস্ব প্রতিনিধি : উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল এবং প্রবল বর্ষণে সিলেটের বিয়ানীবাজারের ৬ ইউনিয়নের অর্ধশতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। তলিয়ে গেছে বিয়ানীবাজার-সিলেট ও বিয়ানীবাজার-চন্দরপুর সড়কের কিছু অংশ।

এছাড়া অনেক এলাকার গ্রামীণ রাস্তা বন্যার পানিতে ডুবে গেছে। রোববার রাতে কুশিয়ারা নদীর পশ্চিম মেওয়া এলাকার ডাইক ভেঙে বিয়ানীবাজার-সিলেট সড়কের মায়ন চত্বর এলাকা তলিয়ে গেছে। সড়কের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে কুশিয়ারার পানি। বিয়ানীবাজার-চন্দরপুর সড়কের তিলপাড়া বাজার এলাকা ডুবে গেছে। এ সড়কের আরও কয়েকটি অংশের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। বুধবার কুশিয়ারা নদীর শেওলা পয়েন্টে বিপদসীমার ২১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢল ও প্রবল বর্ষণে এরই মধ্যে তলিয়ে গেছে দুবাগ, শেওলা, কুড়ারবাজার, মুড়িয়া, মাথিউরা ও তিলপাড়া ইউনিয়নের বেশ কিছু এলাকায়। দুবাগ ইউনিয়নের খাড়াভরা এলাকা থেকে যুক্তরাজ্য প্রবাসী মিছবাহকে ও থানা পুলিশের সহযোগিতায় নিরাপদ স্থানে নেয়া হয়েছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে উপজেলার ৬ ইউনিয়নের অধিবাসীরা অনেকটা পানিবন্দি হয়ে পড়বেন। এদিকে উপজেলা প্রশাসন থেকে আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। বন্যাকবলিত এলাকার আশ্রয় কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখতে মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের নিদের্শ দেয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মু. আসাদুজ্জামান বলেন, আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত আছে। এখনও কোনো পরিবার আশ্রয় কেন্দ্রে আসেনি। বন্যাকবলিত এলাকায় ঝুঁকির মধ্যে বসবাস করছেন যদি এরকম পরিবারের সন্ধান পাই তাহলে আমরা তাদের দ্রুত আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে আসব। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান খান বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানি দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open