আওয়ামী পাণ্ডাদের দিয়ে বিএনপির গাড়িবহরে আক্রমণ সরকারের পতনের আগে শেষ মরণকামড়- খালেদা জিয়া।

সুরমা টাইমস ডেস্ক;

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সিনিয়র নেতাদের ওপর অতর্কিত হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

রোববার এক বিবৃতি ও টুইট বার্তায় তিনি বলেন, এ হামলা গণতন্ত্র, রাজনীতি, নাগরিক অধিকার ও পরমতসহিষ্ণুতার ওপর হামলা, এর পরিণাম শুভ হবে না।

তিনি অভিযোগ করেন, পাহাড় ধসে উপদ্রুত এলাকায় সরকারের তাচ্ছিল্যপূর্ণ ব্যবস্থাপনায় দেশব্যাপী ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে যে ধিক্কার উঠেছে সেখান থেকে জনগণের চোখ অন্যত্র সরাতেই বিএনপি মহাসচিবের গাড়িবহরে হামলা করা হয়েছে।বিবৃতিতে তিনি আরও বলেন, আওয়ামী পাণ্ডাদের দিয়ে বিএনপির গাড়িবহরে আক্রমণ সরকারের পতনের আগে শেষ মরণকামড়। তবে বর্তমান শাসকগোষ্ঠীর সব অপকর্মের হিসেব নিতে জনগণ অপেক্ষা করছে। আর এই অপেক্ষা বেশি দীর্ঘ হবে না।

খালেদা জিয়া বলেন, রাঙ্গুনিয়ায় আওয়ামী সন্ত্রাসীদের সশস্ত্র হামলায় বিএনপি মহাসচিবসহ বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দের গাড়িবহরে হামলা ও শারীরিকভাবে আক্রমণ করে আহত করার যে নজির সৃষ্টি করা হলো তা গণতন্ত্রের শেষ চিহ্নটুকু মুছে ফেলতে সরকারের একটি দুর্বিনীত উদ্যোগ।

এই ঘটনা বর্তমান বিনা ভোটের সরকারের আরেকটি হিংসাশ্রয়ী অসুস্থ রাজনীতিরই বহিঃপ্রকাশ। আওয়ামী লীগ গুণ্ডামিকেই আশ্রয় করেছে টিকে থাকার অবলম্বন হিসেবে। তাই শান্তি, স্বস্তি ও জন-নিরাপত্তাকে বিসর্জন দিয়ে নৈরাজ্যকেই বেছে নিয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, এভাবে ভয়ভীতি, শংকা ও আতংকের পরিবেশ বজায় রেখে গণপ্রতিবাদকে চাপা দিয়ে রাখাটাই হচ্ছে তাদের মূল লক্ষ্য। সরকার ভক্ষকের ভূমিকা গ্রহণ করার জন্যই বাংলাদেশে মানুষের জীবন-জীবিকা এখন ভয়ংকর নিরাপত্তাহীনতায় বিপন্ন। জনসমর্থনহীন ক্ষমতা আঁকড়ে রাখতেই অপরাধ ও অপরাধীদের সহযোগী হিসেবে বেছে নিয়েছে এই সরকার। তাই জনসমাজে সন্ত্রাসীদের শাসনই সর্বত্র বিরাজমান।

দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে খালেদা জিয়া বলেন, দূর্গত এলাকার বিপন্ন মানুষগুলো এখন শোকে-দুঃখে ম্রিয়মান। বিশুদ্ধ পানি, খাবার ও চিকিত্সার জন্য পর্যাপ্ত সহযোগিতা না থাকায় অভুক্ত ও অসুস্থতায় মানবেতর জীবন-যাপন করছে। বিদ্যুৎ ও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার কারনে ওই এলাকাগুলোয় ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় নেমে এসেছে। অসহায় মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে সরকার প্রধান বিদেশ সফরেই সময় কাটিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের জনগণকেই আওয়ামী লীগ সবচেয়ে বড় দুশমন মনে করে। সেজন্য বারবার প্রাকৃতিক দুর্যোগে দুর্ভোগে নিপতিত মানুষের পাশে আওয়ামী সরকার কোন সময়ই দাঁড়ায়নি। এরা জনগণের বিপদে ও কষ্টে আনন্দ লাভ করে। তাই বিএনপি’র উচ্চ পর্যায়ের টিমকে দূর্গত এলাকায় ঢুকতে না দিয়ে নেতাদের গাড়িবহরে হামলা, উপদ্রুত এলাকায় যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণে সরকারের ব্যর্থতা ঢাকারই কৌশল।

Open