গোলাপগঞ্জে শিক্ষার হার যথেষ্ট নয়, সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ।

নিজস্ব প্রতিনিধি ::
গোলাপগঞ্জ উপজেলায় বার্ষিক উন্নয়ন তহবিল (এডিপি ২০১৬-১৭)-এর আওতায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে উপকরণ বিতরণ ও মতবিনিমিয় সভায় সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম বলেন, গোলাপগঞ্জে শিক্ষার হার যথেষ্ট নয়। এ উপজেলার শিক্ষার হার বাড়ানোর জন্য সকলকে কাজ করে যেতে হবে। বর্তমানে বাংলাদেশ শিক্ষাক্ষেত্রে অনেক এগিয়ে গেলেও এ উপজেলার শিক্ষার হার শতকরা ৪৬.৯৭ ভাগ মাত্র (২০১১ সালের হিসাব অনুযায়ী)। যদিও শিক্ষামন্ত্রী এ উপজেলার শিক্ষার অবকাঠামোগত উন্নয়নে যথেষ্ট ভূমিকা রেখে চলেছেন। তিনি উপজেলার কৃষি ও কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে আবাদি জমিতে বেশি ফসল উৎপাদন ও এক ফসলি জমিতে তিনটি ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যে উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরকে সাধারণ কৃষকদের মাঠ পর্যায়ে প্রশিক্ষণ প্রদানের উপর গুরুত্বারোপ করেন।
গোলাপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলতাফ হোসেনের সভাপতিত্বে গত সোমবার গোলাপগঞ্জ উপজেলায় বার্ষিক উন্নয়ন তহবিল (এডিপি ২০১৬-১৭)-এর আওতায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে উপকরণ বিতরণ ও মতবিনিমিয় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
বিভাগীয় কমিশনার গোলাপগঞ্জ উপজেলায় কৃষি ক্ষেত্রে শ্রমিক সংকট নিরসনে আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির মেশিন ব্যবহারের জন্য কৃষকদের আহবান জানান। তিনি বলেন, সরকার কৃষকদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে। আকস্মিক বন্যায় মৎস্যচাষিরা যাতে ক্ষতির সম্মুখীন না হন, সে জন্য হাওর এলাকায় পুকুরে বা বিলে খাচায় মাছ চাষ অনেকটা নিরাপদ বলে তিনি উল্লেখ করেন। ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে মৎস্যচাষিদের সেবা ও প্রশিক্ষণ প্রদানে উপজেলা মৎস্য অফিসারের ভূমিকার প্রসংশা করে বলেন, তৃণমূল পর্যায়ের মৎস্যজীবীরা সহজ পদ্ধতিতে মৎস্য উৎপাদন ও চাষ করতে পারে সেই বিষয়ে তাদের প্রশিক্ষণ প্রদান করতে হবে।
মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় সরকার উপপরিচালক দেবজিৎ সিনহা, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মামুনুর রহমান, গোলাপগঞ্জ পৌরসভা মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রীর বিশেষ প্রতিনিধি সৈয়দ মিছবাহ উদ্দিন, উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজ নাজমুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিক উদ্দিন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার অভিজিৎ কুমার পাল, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার চিন্তাহরণ দাস, উপজেলা টিআইও মো. হাবিবুর রহমান, উপজেলা প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান, উপজেলা কৃষি অফিসার মো. খায়রুল আমীন, উপজেলা মৎস্য অফিসার ফনিন্দ্র চন্দ্র সরকার, উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম, উপজেলা একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শাহিনুল ইসলাম, গোলাপগঞ্জ পল্লি বিদ্যুতের ডিজিএম মামুনুর রশীদ, সমাজসেবী তাহেরা সিরাজ, ঢাকাদক্ষিণ ইউপি চেয়ারম্যান এসএম আব্দুর রহিম, লক্ষণাবন্দ ইউপি চেয়ারম্যান নছিরুল হক শাহীন, ভাদেশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান জিলাল আহমদ, শরীফগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মুমিত হীরা, গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি অজামিল চন্দ্র নাথ, স্কাউট প্রতিনিধি ও দৈনিক সিলেটের ডাক প্রতিনিধি মাহফুজ আহমদ চৌধুরী।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নোমান উদ্দিন মোরাদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. সাহানা বেগম, গোলাপগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ চৌধুরী, আমুড়া ইউপি চেয়ারম্যান রুহেল আহমদ, বাদেপাশা ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ।
মতবিনিময় সভা শেষে বিভাগীয় কমিশনার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের হাতে শিক্ষা উপকরণ হিসেবে ল্যাপটপ ও হারমোনিয়াম তুলে দেন এবং উপজেলা প্রাঙ্গণে একটি গাছের চারা রোপণ করেন ও উপজেলা ভূমি অফিসের সাধারণ মানুষের সেবার সুবিধার্থে সেবাঘরের উদ্বোধন করেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open