বালাগঞ্জের ইউএনও, উপজেলা চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে ম্যাজিস্ট্রেটের মামলা

স্টাফ রিপোর্টার ::
নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে বালাগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে।
গতকাল বুধবার বিকেলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. নজরুল ইসলামের আদালতে এই মামলাটি দায়ের করেন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আতিকুল হায়দার। মামলা নম্বর বালাগঞ্জ সিআর ৯২/১৬। মামলায় ইউএনও এটিএম আজহারুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান আবদাল মিয়া এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আনহার মিয়াকে আসামি করা হয়েছে।
আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বালাগঞ্জ থানার ওসিকে এফআইয়ার হিসেবে রুজু করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।
মামলায় অভিযোগ করা হয়, গতকাল বুধবার জেলা পরিষদ নির্বাচন চলাকালে সকাল ৯ টায় বালাগঞ্জের ডিএন উচ্চবিদ্যালয়ে ভোট প্রদানের সময় উপজেলা চেয়ারম্যান আবদাল এবং আওয়ামী লীগ নেতা আনহার আচরণবিধি লঙ্ঘন করেন। তাদের সাথে ইউএনও আজহারও যোগ দেন বলে অভিযোগ করা হয়।
এসময় তাদের ভোটকেন্দ্র থেকে চলে যেতে বললে উপজেলা চেয়ারম্যান আবদাল মিয়া এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনহার মিয়া মামলার বাদি ম্যাজিস্ট্রেটকে ঘিরে ধরেন এবং ইউএনও তাঁর সাথে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করেন বলেও এজাহারে অভিযোগ করা হয়।
এ ব্যাপারে বালাগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আবদাল মিয়া বলেন, আমি ভোটকেন্দ্র থেকে ভোট দিয়ে বেরিয়ে আসার সময় একজন এজেন্ট আমার দিকে হাত বাড়িয়ে দেন। এসময় আমি তার সাথে হাত মেলালে একজন ব্যক্তি আমাকে ধমক দিয়ে ভোটকেন্দ্র ছেড়ে চলে যেতে বলেন। আমি তাঁর পরিচয় জানতে চাইলে তিনি আরো রেগে যান। পরে ইউএনও এবং আওয়ামী লীগ নেতা আনহার এসে আমার পরিচয় দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করতে চাইলে ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল হায়দার আরো ক্ষেপে গিয়ে আমাদের তিনজনের সাথেই দুর্ব্যবহার করেন।
উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, শুনেছি এ ঘটনায় ম্যাজিস্ট্রেট একটি মামলা দায়েরে আাবেদন করেছেন। প্রশাসনের শীর্ষ ব্যক্তিবর্গ এবং রাজনৈতিক নেতারা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছেন বলেও জানান তিনি।
এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আনহার মিয়া বলেন, আমি ভোট দিয়ে বেরিয়ে আসার সময় দেখতে পাই উপজেলা চেয়ারম্যানের সাথে এক ব্যক্তির কথা কাটাকাটি হচ্ছে। এসময় আমি এগিয়ে গিয়ে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করি। এসময় কোনো আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেনি।
মামলা দায়েরের কথা শুনেছেন বলে জানান বালাগঞ্জের উপজেলো নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম আজহারুল ইসলামও। তবে মিটিংয়ে আছেন উল্লেখ করে এ ব্যাপারে পরে কথা বলবেন বলে জানান তিনি।
এ ব্যাপারে বালাগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কমর্কতা তুরিকুল ইসলাম বলেন, আদালত থেকে মামলা সংক্রান্ত একটি কাগজ এসেছে বলে শুনেছি। তবে আমি অন্য একটি কাজে থানার বাইরে। এখনো বিস্তারিত জানতে পারিনি।

Sharing is caring!

Loading...
Open