নারায়ণগঞ্জে কৌশলী প্রচারণা

1ডেস্ক রিপোর্ট :: দলীয়ভাবে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু না হলেও আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই মেয়র প্রার্থী নিজস্ব লোকবল নিয়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলছে প্রচারণা। এর মধ্যে রয়েছে মতবিনিময়, দেখা সাক্ষাৎ, উঠান বৈঠক ও কৌশল বিনিময়। গতকালও মেয়র প্রার্থী আইভী ও সাখাওয়াত হোসেন নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন।
উন্নয়নই আমার একমাত্র ভরসা- আইভী আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, উন্নয়ন করেছি জনগণের জন্য। কথা বলেছি নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য। এ উন্নয়নই আমার একমাত্র ভরসা। তাই নারায়ণগঞ্জবাসীর প্রতি আমার আস্থা রয়েছে, তারা সঠিক সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নিবে। তিনি আরো বলেন, প্রতীক পাওয়ার পর আমার নির্বাচনের প্রচারণা শুরু হবে। তারপর বোঝা যাবে নির্বাচনের পরিবেশ কেমন আছে। এ আগে কিছুই বলো যাবে না। একটা নির্বাচন করতে হলে যে ধরনের আইনশৃঙ্খলা প্রয়োজন, নির্বাচন কমিশন সে ধরনের প্রস্তুতি নিবে। প্রচারণার পর যদি দেখি নির্বাচনের কোনো বিঘ্ন ঘটবে তখন আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কে বলবো।
বৃহস্পতিবার বিকালে মুক্তিযোদ্ধা দিবস উপলক্ষে সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের আয়োজনে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
মেয়র প্রার্থী আইভী আরো বলেন, নির্বাচন করতে হয় সবাইকে নিয়ে। আমিও সবাইকে নিয়ে নির্বাচন করবো। আওয়ামী লীগের সব নেতাকর্মী আমার পাশে আছে। তারা সবাই মিলে নৌকার জন্য মাঠে কাজ করবে। নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগে মধ্যে কোনো বিভেদ নেই। সবাই এক আছে, এক থাকবে।
তিনি আরো বলেন, উন্নয়ন দিয়ে জনগণের পাশে যাওয়া যায়। তাদের সুখ-দুঃখের কথা শুনতে হয়। তারপরই উন্নয়নের রূপরেখা তৈরি করা হয়। আমি ৫ বছর সে কাজটি করেছি। এখন পরীক্ষার পালা এসেছে। দেখি নগরবাসীর ভালোবাসা নিয়ে সে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারি কিনা।
সিদ্ধিরগঞ্জে নাসিক ৮নং ওয়ার্ডের ২নং ঢাকেশ্বরী বাসস্ট্যান্ডে মুক্তিযোদ্ধা কার্যালয়ে সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান ভূঁইয়া জুলহাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মিলাদ মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা এহসান কবীর রমজান, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুর হোসেন মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মতিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিদ সাউদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মহি মোল্লা প্রমুখ।
সরকারি দলের বাধার সম্মুখীন হচ্ছি : সাখাওয়াত
বিএনপির মেয়র প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে বিএনপির কর্মীদের পুলিশ রাস্তায় বের হতে বাধা ও বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন। বৃহস্পতিবার সকালে নগরীর আমলাপাড়া আইডিয়াল স্কুলে অভিভাবকদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটি এম কামালসহ অন্যান্য নেতাকর্মী তার সঙ্গে ছিলেন।
সাখাওয়াত হোসেন অভিযোগ করেন, প্রশাসনের লোকরা তার দলের কর্মীদের মামলা ও গ্রেপ্তারের ভয় দেখাচ্ছে। তিনি বলেন, ‘সরকারি দলের বাধার সম্মুখীন হচ্ছি। আমাদের অনেক নেতাকে সরকারের বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। প্রশাসন থেকে আমাদের কর্মীদের প্রতি বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হচ্ছে। এবং আমাদের কর্মীদের কাউকে কাউকে গ্রেপ্তারের হুমকি দেয়া হচ্ছে। এই বিষয়গুলোতে আমরা মনে করি যে প্রশাসন নিরপেক্ষ থাকবে এবং ২২ তারিখ পর্যন্ত নির্বাচনী যে আমেজটা আছে, সে আমেজটা ধরে রাখবে।’
তিনি আরো বলেন, খুব সামনেই নির্বাচন। এই নির্বাচনকে যাতে প্রতিযোগিতামূলক করতে পারি, সেই আশা নিয়েই আজ (বৃহস্পতিবার) দিনব্যাপী আমার কর্মসূচি ছিল। সকালে মহানগর এবং জেলা পর্যায়ের অঙ্গসংগঠনগুলোর সভায় কীভাবে নির্বাচনে আমরা মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে পারি, সে ব্যাপারে শ্রমিক দলকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে কর্মপন্থা। ‘দুপুরে ইসলামী ঐক্যজোটে’র নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সাক্ষাৎ করা হয়েছে। আসরের পর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কয়েকটি উঠান বৈঠক করেছি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শহরের নন্দিপাড়ায় উঠান বৈঠক চলছিল।
দোয়া নিতে সৈয়দ আশরাফের বাসায় আইভী
এদিকে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী দোয়া নিতে দলের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বাসায় গিয়েছেন। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় জনপ্রশাসনমন্ত্রীর বেইলি রোডের বাসায় যান আইভী। প্রায় আধাঘণ্টার বৈঠকে সৈয়দ আশরাফের সঙ্গে আইভীর নির্বাচনী কৌশল নিয়ে কথা হয়। এ সময় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের কাছে দোয়া চেয়ে আইভী বলেন, ‘আমি যখন পৌরসভা নির্বাচনে (২০০৩) প্রার্থী হই, আপনি তখন নির্বাচনের প্রচারণায় গিয়ে তিনদিন ছিলেন। নির্বাচনী মাঠে থেকে আপনি আমাকে বিজয়ী করে এনেছেন। আমি আপনার দোয়া নিতে এসেছি।’ নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আইভী জনপ্রশাসন মন্ত্রীর কাছে পরামর্শ চান।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী একেএম সাজ্জাদ হোসেন শাহীন সাংবাদিকদের বলেন, ‘বৃহস্পতিবার সকালে ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সঙ্গে দেখা করেছেন। মেয়র পদপ্রার্থী আইভী তার নির্বাচনী বিষয় নিয়ে মন্ত্রীকে জানিয়েছেন।’
প্রচারণায় ফেসবুক
এদিকে আগামী ৫ই ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পর পরই শুরু হবে প্রার্থীদের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা। তবে তাদের পক্ষে ভিন্ন আঙ্গিকে প্রচারণা চালাচ্ছেন তাদের সমর্থকরা। সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে চলছে সেই প্রচারণা। আবার আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থীর পক্ষে-বিপক্ষেও চলছে প্রচারণা।
আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থকগোষ্ঠী নামে খোলা হয়েছে একটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। এছাড়া তপন মিয়া, সহিদুল্লাহ সরদারসহ অনেকেই নৌকা প্রতীক সংবলিত পোস্টার আপলোড করে আইভীর পক্ষে ভোট চাইছেন। আবার আইভীর বিরুদ্ধেও রয়েছে প্রচারণা। নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান তার ফেসবুক পেজে আইভীকে ভোট না দেয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রচারণা চালিয়েছেন।
এদিকে বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের পক্ষেও চলছে ফেসবুকে সরব প্রচারণা। রুহুল আমিন, মাসুদ আলম, লাভলু মিয়া, ইয়াসিন নাজমুল, নূর ইসলাম, সনমান্দি ইউনিয়ন ছাত্রদল, রাসেল আহাম্মেদ মনিরসহ অনেকেই সাখাওয়াত হোসেন খানের ধানের শীষের পোস্টার তাদের ফেসবুক পেজে আপলোড করেছেন। এছাড়া কাউন্সিলর প্রার্থীদের অনেকের পক্ষেই তাদের সমর্থকরা ফেসবুকে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন। তাদের বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগের ছবি আপলোড করা হচ্ছে সমর্থকদের ফেসবুকের পেজে।সুত্র- মানবজমিন

Sharing is caring!

Loading...
Open