জৈন্তাপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে মহিলা ও শিশুসহ অহত ১৮

2-daily-sylhet-sanggarsho-news1-1জৈন্তাপুর প্রতিনিধিঃ জৈন্তাপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দু’পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে মহিলা-শিশুসহ ১৮ জন অহত । থানায় অবিযোগ দায়েরের। গুরুত্বর আহত ১০ জনকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ২৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় জৈন্তাপুর উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের করগ্রাম এলাকায় মসজিদের উঠান দিয়ে গোবর নেয়াকে কেন্দ্রে করে হাজী আতাউর রহমান গ্রুপ ও আব্দুল মজিদ গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ঘটে। এ সময় উভয় পক্ষের লোকজন লাটি-সুটা নিয়ে একে অন্যের উপর আক্রমন চালায়। এ সময় গুরুত আহত হন করগ্রাম গ্রামের মৃত হাজী আবন মিয়ার ছেলে আব্দুর জজিদ (৬০), আব্দুল মজিদের ছেলে রুহুল আমীন (৩০), মুহিবুল আমীন (২০), বেলাল আমীন (১৮), মেয়ে ফানহানা বেগম (১৬), স্ত্রী ছায়ারুণ নেছা (৬০) , ছিতারা বেগম (৪০), মৃত আং মালিকের মেয়ে হাওয়ারুন নেছা (৪৫), আং মুছব্বিরের ছেলে কাউসার আহমদ (১৮), হাবিব উললার ছেলে মনতাজ আলী (৪৫), আব্দুর রফিকের ছেলে ছলেহ অঅহমদ (৩২), মৃত আব্দুর রউফের ছেলে তারেক আহমদ, মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে হাজী আতাউর রহমান (৭৫), ফজলুল রহমান (৫৫), লুৎফুর রহমান (৭০), ফয়জুল রহমানের ছেলে জয়নাল আবেদীন (২৭), আব্দুল ওয়াহাবের ছেলে আব্দুল মতিন (২৭), আতাউর রহমানের ছেলে আব্দুর রহমান (৩৮) এদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্ষ থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছাড় পত্র দেয়া হয়। জানা যায়, আজ সকাল বেলা আতাউর রহমান এর ছেলে গোভরের ভার হাজী আব্দুর রহিম জামে মসজিদের উঠান দিয়ে যাবার সময় আব্দুল মজিদের ছেলে মসজিদের পরিবেশ নষ্ট হবে বলেল উত্তেজিত হয়ে আতাউর রহমান এর লোকজন ঝড়ো হয়ে আব্দুল মজিদের বাড়ীতে গিয়ে আক্রমন করলে উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংর্ষের ঘটনা ঘটে । এ ব্যাপারে জৈন্তাপুর মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ সফিউল কবির ঘটনার সথ্যতা স্বীকার করে বলেন, সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয়দের সহযোগিতায় স্থানীয় হাসপাতালে পাঠাই। এ নিয়ে উভয় পক্ষ থেকে লিখিত দু’টি অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যাবস্থা নেয়া হব।

Sharing is caring!

Loading...
Open