বালাগঞ্জ-ওসমানীনগরে দুর্গাপূজা হবে ৬১টি মন্ডপে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

1শিপন আহমদ, ওসমানীনগর ::: সনাতন ধর্মাবলম্বীর প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা জমিয়ে তুলতে বালাগঞ্জ-ওসমানীনগরে ৬১টি মন্ডপে প্রতিমা তৈরি ও সাজসজ্জায় এখন ব্যস্ত আয়োজক ও কারিগররা। পূজা মন্ডপগুলোর প্রস্তুতির কাজ চলছে পুরোদমে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলার পূজামন্ডপেগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ব্যাপক প্রস্তুতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।
প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, এবার মান্ডবগুলোর নিরাপত্তার নিশ্চিত করার জন্য অতিরিক্ত পুলিশ ও আনসার মোতায়নের পাশাপাশি তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারসহ উপজেলায় গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোতে পুলিশের ভ্রাম্যমাণ টিমসহ গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিদের টহল অব্যাহত থাকবে। পূজায় সর্বস্তরের আইন শৃঙ্খলা বজায় রাখতে উৎসব চলাকালীন আরও ব্যাপক নিরাপত্তা জোরদারের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ওসমানীনগর থানা প্রাঙ্গণে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে  মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। থানার অফিসার ইনচার্জ  আব্দুল আউওয়াল চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শওকত আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন ওসমানীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান চৌধুরী নাজলু, সাবেক সভাপতি কবির উদ্দিন আহমদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দাল মিয়া, বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন কমিটির উপজেলা শাখার আহবায়ক সত্যেন্দ্র কুমার পাল কানু, হিন্দু বোদ্ধ ঐক্য পরিষদের উপজেলা শাখার আহবায়ক সত্যেন্দ্র কুমার দেব, উপদেষ্টা পিনাক পানি ভট্টাচায। সভায় উপজেলার সকল পূজামন্ডপের কমিটির সভাপতি ও সেক্রেটারিরা উপস্থিত ছিলেন।
ওসমানীনগর উপজেলায় এ বছর সার্বজনীন ২৫টি ও ব্যক্তিগত ৭টি মিলিয়ে মোট ৩২টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। বালাগঞ্জ উপজেলায় সার্বজনীন ২৭টি ও ব্যাক্তিগত ২টি মিলিয়ে ২৯টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও সরকারিভাবে প্রতি মন্ডপে ৫০০ কেজি চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।
অন্যদিকে এবার প্রতিমা তৈরিতে খরচ বাড়ায় পূজার ব্যয় নিয়ে আয়োজকদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার এটেল মাটি, বাঁশ, সুঁতলির দামও বাজারে অনেকটা চড়া। এর ফলে প্রতিমা তৈরিতে প্রয়োজনীয় সামগ্রীসহ প্রতিমা ভাস্কররাও তাদের মজুরি বাড়িয়ে দিয়েছেন। তারপরও থেমে নেই হিন্দু সমপ্রদায়ের এ সর্ববৃহৎ উৎসব আয়োজনের।
বালাগঞ্জ পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক রজত দাশ ভুলন জানান, শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসবের ব্যাপারে ইতোমধ্যে উপজেলা প্রশাসনসহ থানা  প্রশাসনের পক্ষ থেকে  শান্তিপূর্ণভাবে পূজা উদযাপনের ব্যাপারে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস পাওয়া গেছে।
ওসমানীনগর পূজা উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক সত্যেন্দ্র কুমার পাল কানু বলেন, আসন্ন দুর্গা পূজায় শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে প্রশাসনের পাশাপশি  উদযাপন কমিটি ও আয়োজকদের উদ্যোগে গঠন করা হচ্ছে মনিটরিং সেল। যারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে সার্বক্ষণিক কাজ করে যাবে।
তেরহাতি সার্বজনীন পূজা উদ্যাপন কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শুভ দেব নয়ন জানান, আগামী ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে ১১ অক্টোবর দশমী পূজা শেষে প্রতিমা বির্সজনের মধ্য দিয়ে এ উৎসবের সমাপ্তি হবে। পূজাকে কেন্দ্র করে গোটা এলাকাই সাজসাজ রব বিরাজ করছে।
ওসমানীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউওয়াল চৌধুরী আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে পূজাকে কেন্দ্র করে যে-কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি কঠোর হস্তে দমন করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে বলেন,পূজা মন্ডপগুলোর ভেতরে ও বাইরে  তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হচ্ছে। পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ টিমের টহল অব্যাহত সহ গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্দি করা হবে। এর লক্ষ্যে আমরা পূজা উদ্যাপন কমিটির নেতৃবৃন্দকে নিয়ে মতবিনিময় সভা করেছি।
ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শওকত আলী বলেন, উপজেলার প্রতিটি পূজামন্ডপে ৫০০ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। পূজায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে উপজেলা প্রশাসনের সজাগ দৃষ্টি রয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open