সমঝোতার পরেও মামলা করলো ইসকন : আসামী ২ হাজার , মুসল্লিদের উপর থেকে মামলা প্রত্যাহারের দাবি

1ডেস্ক রিপোর্ট :: সিলেটে ইসকন মন্দিরে হামলার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় ৩৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আসামী করা হয়েছে ২ হাজার জনকে। এছাড়া ৩০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করা হয় মামলার এজাহারে। ইসকন সিলেটের অধ্যক্ষ শ্রীপাদ নবদ্বীপ গৌরাঙ্গ দ্বিজ বাদি হয়ে শনিবার রাতে কোতয়ালী থানায় এ মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতয়ালী থানার ওসি সুহেল আহমদ।
গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে সিলেট স্টেডিয়ামে কাজলশাহের অপ্রীতিকর ঘটনা নিয়ে প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ নগরীর বিশিষ্টজনদের নিয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার জামাল উদ্দীন আহমেদ, পুলিশ কমিশনার কামরুল আহসান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ।
সভায় এলাকায় শান্তি-শৃংখলা বজায় রাখা নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে আলোচনা ও সমঝোতা হয়। বৈঠকে উভয়পক্ষ পূর্বের ন্যায় সহাবস্থানে থাকার ঘোষনা দেন। কিন্তু পরদিন শনিবার রাতে ইসকনের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হয়। মুসল্লীরা সমঝোতার পক্ষে থাকালেও বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মামলা করলো ইসকন।
জানা যায়, কাজলশাহ এলাকার ইসকন মন্দিরে ভক্তরা বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র নিয়ে গানবাজনা করেন। শুক্রবারে নামাজের সময়ও তারা গানবাজনা বন্ধ করেন না। এ বিষয়ে তাদের বেশ কয়েকবার বলা হলেও তারা গানবাজনা চালিয়ে যায়। গতকাল জুমআ’র নামাজের আগে একাধিক মুসল্লী ইসকন মন্দিরে গিয়ে নামাজ চলাকালীন সময়ে গানবাজনা সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ করে আসেন। কিন্তু তাদের এই অনুরোধ আমলে নেয়নি ইসকন কর্তৃপক্ষ। পাশ্ববর্তী মসজিদে জুমআ’র নামাজ চলাকালে আরো উচ্চস্বরে বাদ্যযন্ত্র বাজাতে থাকে ইসকন ভক্তরা। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্থানীয় মুসল্লীরা নামাজ শেষে ইসকন মন্দিরে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। মন্দির থেকে ইসকন ভক্তরা পাল্টা মুসল্লীদের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এতে ৫ জন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে। এসময় কয়েকজন মুসল্লীকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। ওই দিন রাতে মুসল্লিদের সাথে ইসকন ভক্তদের সংঘর্ষের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাঈনুল হাসানকে প্রধান করে এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এদিকে এক বিবৃতি তে ইসকন কর্তৃক মুসল্লিদের উপর মামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সিলেট জেলা ও মহানগর জাতীয় ইমাম সমিতি। ইমাম নেতৃবৃন্দ বলেন মুসল্লিদের উপর ইসকন এর মামলার তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সাধারণ মুসল্লিদের উপর দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার এর জোর দাবি জানাচ্ছি।
বিবৃতিতে বলা হয় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উপর সিলেটে কখনও আঘাত আসেনি, বহু ধর্মজাত ও সংস্কৃতির মানুষের বসবাস এই সিলেটে। ইসকন কর্তৃপক্ষ যে কলংক লেপন করেছে তা কখনও কাম্য নয়। তবে ভবিষ্যৎ এরকম সম্প্রীতি বিনষ্টকারী যে কোন পরিস্থিতি এড়াতে প্রশাসন এর সহযোগিতায় আন্তঃধর্মীয় নেতাদের নিয়ে একটি শান্তি কমিটি গঠন করার প্রস্তাব জানাচ্ছি।
বিবৃতিদাতারা হলেন জাতীয় ইমাম সমিতি সিলেট জেলা সভাপতি হাফিজ মাওলানা নাসির উদ্দীন সাধারণ সম্পাদক মাওলানা এহসান উদ্দীন, মহানগর সভাপতি মাওলানা হাবীব আহমদ শিহাব ও ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মাওলানা নুর আহমদ কাসেমী।

Sharing is caring!

Loading...
Open