বালাগঞ্জের মোরারবাজার-কুবেরাইল সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গণ : জনসাধারণের চরম দুর্ভোগ

এসএম হেলাল,বালাগঞ্জ: বালাগঞ্জ উপজেলার মোরারবাজার-কুবেরাইল সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গনের কারণে এ অঞ্চলের ১৪টি গ্রামের হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন মারাত্মক দূভোর্গের শিকার হচেছন। এলাকার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, চাকুরীজীবী, শ্রমিকসহ শত শত যাত্রী এবং স্থানীয় জনকল্যাণ বাজারের ব্যবসায়ীদের পণ্য সামগ্রী পরিবহনে প্রতিনিয়ত শতাধিক অটোরিক্সা ছাড়াও বিভিন্ন প্রকার অসংখ্য মালবাহী যানবাহন যাতায়াত করছে এ সড়ক দিয়ে। স্থানীয় বিভিন্ন সংগঠন এবং এলাকাবাসীর উদ্যোগে লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয়ে দফায় দফায় সংস্কারের পরও সড়কের স্থানে স্থানে গর্ত সৃষ্টি হয়ে গেছে। সংস্কারের অভাবে বর্তমানে সড়কের বিভিন্ন স্থানে ইট সুরকি ভেঙ্গে রড বেরিয়ে পড়েছে। এলাকাবাসী এবং পরিবহন শ্রমিকদের দাবী জরুরী ভিত্তিতে সরকারী উদ্যোগে কার্যকর ব্যবস্থা না নিলে অচিরেই অচল হয়ে পড়তে পারে অবহেলিত এ জনপদের যোগাযোগ ব্যবস্থা।
জানা যায়, ৯৬-৯৭ এবং ২০০২-২০০৩ সালে দুই দফায় দীর্ঘ প্রায় ৫ কিলোমিটার এ সড়কটি আরসিসি ঢালাই করা হয়। পরবর্তীতে ২০০৭ সালে সড়কের আংশিক অংশ দায়সাড়া সংস্কার করে দেওয়া হলেও সড়কের বাকি অংশ আর আজও সংস্কার করা হয়নি। প্রতি বছর অব্যাহত বন্যায় সড়কটি পানিতে তলিয়ে গিয়ে ভাঙ্গন ও গর্তের সৃষ্টি হয়। বন্যার শেষে যানবাহন চলাচল শুরু হলে ফাটল ও ভাঙ্গন দেখা দেয়। এলাকাবাসী তাৎক্ষনিকভাবে নিজস্ব উদ্যোগে অর্থ সংগ্রহ করে বড় বড় ভাঙ্গন এবং গর্তে ইট ফেলে ভরাট করে দেন। কিছু দিন যানবাহন চলাচলের পর আবার আগের মত হয়ে পড়ে। এভাবে এলাকাবাসী গত কয়েক বছর যাবত জোড়াতালি দিয়ে সড়কে চলাচল করে আসছেন। সড়কের উন্নয়নের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে সড়ক সংস্কারের প্রতিশ্রুতি থাকলেও অদ্যাবধি কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। বর্তমানে সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় শতশত গর্তেও সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থায় যানবাহন এবং পথচারী চলাচল বিপদজনক হয়ে উটেছে। পাশাপাশি সড়কের প্রস্থতা কম থাকায় সাধারণ পথচারী এবং যানবাহন গুলো মারাত্মক ঝুকি নিয়ে যাতায়াত করছে।
চালক শাহ আলম ও আমির আলী বলেন, গাড়ী চালাতে বিষণ কষ্ট হয়। গর্ত আর ভাঙ্গনের কারণে প্রতিদিন গাড়ীতে কাজ করাতে হয়। অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন বালাগঞ্জ গহরপুর শাখার সভাপতি মো. আব্দুল আহাদ বলেন, সড়কের যে অবস্থা জরুরী ভিত্তিতে সংস্কার না করলে চালকদের অপারগতার কারণে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিতে হবে। স্থানীয় কলুমা গ্রামের মো. শাইস্তা মিয়া, পাঁচহাল গ্রামের মো. লিয়াকত আলী প্রমুখ এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে সড়কটির উন্নয়নে জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃৃপক্ষ ও সরকারের প্রতি জোর দাবী জানিয়েছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open