কুলাউড়ায় দুই শতাধিক পরিবারের রাস্তা বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দিলেন প্রভাবশালী

Kulaura-Kormodha Rooadবিশ্বজিৎ রায়, কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারে কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নে জনসাধারণের দীর্ঘদিনের চলাচলের একটি রাস্তা বন্ধ করে দেয়ায় গত দুই মাস থেকে তিনটি গ্রামের দু’শতাধিক পরিবার পড়েছে চরম দূর্ভোগে। ওই এলাকার স্কুল ও মক্তবে পড়–য়া কোমলমতি শিশুরাও যেতে পারছে না শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে।
সরেজমিন ঘটনাস্থলে গেলে স্থানীয় লোকজন জানান, কর্মধা ইউনিয়নের দীঘলকান্দি, ফটিগুলি (আংশিক) ও ভান্ডারীগাও এলাকার দু’শতাধিক পরিবারের যাতায়াতের একটি রাস্তা গত দুই মাস পূর্বে হঠাৎ করে বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয় এলাকার প্রভাবশালী তারা মিয়া। এ নিয়ে একাধিকবার স্থানীয় মুরব্বি, ইউপি চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে উপজেলা পর্যন্ত গড়ালেও হয়নি কোন সুরাহা। রাস্তা দিয়ে চলাচলের কারণে এলাকার নিরীহ মানুষকে একাধিকবার মারপিটও করেছে তারা মিয়া। সর্বশেষ ১৮ মে দুপুরে কাতার প্রবাসী মাসুক মিয়ার ভাই ছয়ফুল মিয়া ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় তারা মিয়া তার লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে মারপিঠ করে। ছয়ফুলের আর্তচিৎকারে তার বোন শেলি বেগম (১৯) এগিয়ে এলে তাকেও মারপিঠ করে বখাটে ও তার সহযোগিরা। পার্শ্ববর্তী লোকজন আহতদের উদ্ধার করতে এগিয়ে আসলে তাদেরকেও হামলা মামলার ভয়ভীতি দেখায় তারা মিয়া। এনিয়ে শেলি বেগম বাদি হয়ে তারা মিয়াকে প্রধান আসামী করে কুলাউড়া থানায় একটি মামলা (নং ২০, তাং, ১৯/৫/১৬) দায়ের করেন। এ মামলায় কুলাউড়া থানা পুলিশ ২০ মে তারা মিয়াকে আটক আদালতে সোপর্দ করে। এদিকে মামলা করে বিপাকে পড়েছে শেলি বেগমের পরিবার। মামলা তুলে নেয়ার জন্য তারা মিয়ার সহযোগিরা শেলি বেগম ও তার পরিবারকে প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে।
এলাকাবাসী জানান, প্রধান সড়কের সাথে সংযুক্ত এ রাস্তাটি মুলত ২০৮৮ দাগের খাস ভুমি। স্বাধীনতার পর থেকে তারা ওই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করছি। আকস্মিকভাবে তারা মিয়া রাস্তার দুই পাশ বেড়া দিয়ে বন্ধ করে নিজের বাড়ির ভিটার সাথে যুক্ত করে নেয়। এলাকাবাসী তার এহেন অন্যায় কাজের প্রতিবাদ করলে সে সবাইকে মামলা দিয়ে হয়রানি করবে বলে হুমকি দেয়। কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ও সাবেক ইউপি সদস্য মছদ্দর আলী তার শ্বশুড় হওয়ার সুবাদে বখাটে তারা মিয়া এলাকায় অন্যায়ভাবে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।
এ ব্যাপারে কর্মধা ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান এমএ রহমান আতিক জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে খোঁজ নিয়ে দেখবো।

Sharing is caring!

Loading...
Open