সিলেটে মাজার জিয়ারতে আসার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ জন নিহত

22632ডেস্ক রিপোর্টঃ ওলিকুল শিরোমনির কবর জিয়ারত করতে এসে তাদের ৫ জনের ঠাঁই হচ্ছে কবরে। সিলেটে হযরত শাহজালাল (র.) এ মাজার জিয়ারত করতে আসছিলেন তাঁরা। মাজার আর জিয়ারত করা হয়নি তাদের। তাদের বাড়ি ঢাকায়। বাকীরা হাসপাতালের বিছানায়। রোববার হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি নামক স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান পাঁচজন। এদের মধ্যে তিনজন ঘটনাস্থলে ও বাকী দু’জন ওসমানী হাসপাতালে আনার পথে মারা যান। আরো ৭ জন গুরুতর আহত অবস্থায় ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। নিহত ও আহতদের মধ্যে নারী এবং শিশুরাও রয়েছেন।
জানা যায়, একই পরিবারের ১২ সদস্য মিলে রোববার ভোরে ঢাকা থেকে মাজার জিয়ারতের উদ্দেশ্যে হাইএস মাইক্রোবাসযোগে সিলেটের পথে রওয়ানা দেন। আউশকান্দি ইউনিয়নের মডেল বাজার (২নাম্বার) নামকস্থানে একটি দ্রুতগামী ট্রাক তাদের মাইক্রোবাসকে চাপা দেয়।
ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাস চালক মফিজুল ইসলাম, যাত্রী আবুল কালাম আজাদ (৫৫), রেনু বেগম (৫০) প্রাণ হারান। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে আনার পথে মারা যান নুপুর (৩৫) ও সূচী।
গুরুতর আহত স্বপন হাওলাদার (৩৮), রুমা (৩২), তাসপিয়া (২৪), প্রাচী (৫), সাকিল (২), নিলয় (১১) ও সাথী (২৪) কে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।
সন্ধ্যায় ওসমানী হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, পাঁচটি মরদেহ জরুরী বিভাগে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়েছে। আহতদের ভর্তি করা হয়েছে বিভিন্ন ওয়ার্ডে।
দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঢাকা থেকে সিলেটে এসেছেন আহত সাথীর পিতা জহিরুল ইসলাম। একবার শিশু ওয়ার্ডে, একবার নারী ওয়ার্ডে, আরেকবার পুরুষ ওয়ার্ডে আহতদের নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করছেন তিনি। আবার একটু পরপরই নিচে এসে দেখে যাচ্ছেন আহত স্বজনদের।
তিনি জানান, ঢাকা থেকে অন্য স্বজনরা সিলেট আসছেন। তারা আসার পরই নিহতদের দাফনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
সকালে দুর্ঘটনার পর স্থানীয় বিক্ষুব্দ জনতা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অবস্থান নেয়। এসময় মহাসড়কের ১ ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে।
স্থানীয়রা জানান, সিলেট থেকে ছেড়ে আসা একটি পাথর ভর্তি ট্রাককে পুলিশের গাড়ি ধাওয়া দিলে ট্রাকটি দ্রুত পালিয়ে যাওয়ার সময় সিলেটগামি মাইক্রোবাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ বাধে। এ সময় মাইক্রোবাসটি ধুমড়ে মুচড়ে গিয়ে পার্শের একটি জমিতে পড়ে যায়।
প্রায় ১ ঘন্টা পর খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ও নব-নির্বাচিত স্থানীয় চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান হারুনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি ও যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

Sharing is caring!

Loading...
Open