বিশ্বনাথে ‘বিয়ে পাগল’ লন্ডনীকে নিয়ে তোলপাড়

Biswanath-Pic-15.05.16-600x479-1ডেস্ক রিপোর্টঃ বিশ্বনাথে লন্ডন প্রবাসী আকদ্দুছ আলী লন্ডন নেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এক কিশোরীকে বিয়ে করেছেন। এটি তার তৃতীয় বিয়ে। এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় চলছে। এদিকে, নির্যাতনের অভিযোগ এনে সম্প্রতি ওই প্রবাসীর দ্বিতীয় স্ত্রী রাহেলা বেগম বিশ্বনাথ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। শিগগিরই তিনি এ ব্যাপারে বৃটিশ হাইকমিশনে অভিযোগ দাখিল করবেন বলে জানিয়েছেন।
স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিশ্বনাথ উপজেলার বিশ্বনাথ ইউনিয়নের মুফতিরগাঁও গ্রামের মৃত হরমুজ আলীর পুত্র আবিদ আলী ওরফে আকদ্দুছ আলী প্রায় তিন দশক পূর্বে লন্ডনে পাড়ি জমান। বর্তমানে তিনি বৃটেনের স্থায়ী নাগরিক। যুবক বয়সে আকদ্দুছ আলী দেশে এসে বিয়ে করেন বিশ্বনাথের কল্যাণপুর গ্রামের কাছামালা বেগমকে। কাছামালা বেগমের গর্ভজাত ৬ সন্তান রয়েছে। এই দম্পতির নাতি-নাতনিও আছে এক ডজন। সন্তানদের প্রায় সকলেই বিবাহিত। এরপর আকদ্দুছ আলী ১ম স্ত্রীর অনুমতি না নিয়ে আপন খালাতো বোন রাহেলা বেগমকে বিয়ে করেন বলে স্থানীয়রা জানান। এই স্ত্রীর ঘরে রয়েছে-তার ৩ সন্তান। প্রথম স্ত্রীর সন্তানদের মতো এই স্ত্রীর সন্তানরাও বৃটেনের স্থায়ী নাগরিক। ২ স্ত্রী থাকা সত্বেও গত প্রায় ৩ বছর পূর্বে আকদ্দুছ আলী দেশে এসে ৩য় বারের মতো স্বপ্না বেগম নামের এক কিশোরীকে বিয়ে করেন। দিনমজুর পরিবারের মেয়ে স্বপ্না প্রবাসী আকদ্দুছ আলীর মিষ্টি কথা আর স্বপ্নের দেশ লন্ডনের কথা ভেবে বিয়েতে সম্মতি দেয়। প্রবাসী আকদ্দুছ আলী এই স্ত্রীকে উপজেলার নতুন বাজারে নিজ বাসায় তুলতে না পারায় তার বাবার বাড়ি বিশ্বনাথের পূর্ব শ্বাসরাম গ্রামে নিয়ে বসবাস করতে থাকেন। এক সময়ে পূর্ব শ্বাসরাম গ্রামে আকদ্দুছ আলীর এমন ঘন ঘন আসা যাওয়া নিয়ে এলাকায় নানা কানাঘুষা শুরু হয়। এক পর্যায়ে নিরবে পালিয়ে যান আকদ্দুছ আলী।
স্থানীয় সূত্র জানায়, দুই মাস পূর্বে দেশে এসে দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে বিয়ের অনুমতি চান এই প্রবাসী। এতে রাজি হননি দ্বিতীয় স্ত্রী। এ অবস্থায় ২য় স্ত্রীর সাথে বাসায় না থেকে কখনও ৩য় স্ত্রীর বাড়িতে, আবার কখনও মুফতিরগাঁও গ্রামের নিজ বাড়িতে ভাড়াটেদের সাথে বসবাস করছেন।
সম্প্রতি বিশ্বনাথ থানায় দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগে প্রবাসী আকদ্দুছ আলীর ২য় স্ত্রী রাহেলা বেগম উল্লেখ করেন, গত কয়েক বছর ধরে আকদ্দুছ আলী বিয়ের অনুমতি দেওয়ার জন্য তাকে (রাহেলা) চাপ দিয়ে আসছেন। এতে সম্মত না হওয়ায় লন্ডনে থাকা তার সন্তানদের সাথে যোগাযোগের সুযোগ দিচ্ছেন না আকদ্দুছ আলী। স্বামী তাকে বিভিন্নভাবে মানসিক নির্যাতন করছে এবং তাকে প্রাণে মারারও হুমকি দিচ্ছেন। এতে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন।
আকদ্দুছ আলীর ৩য় স্ত্রী স্বপ্না বেগমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার স্বামী বিয়ের পূর্বে আমাকে লন্ডন নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এবং বর্তমানে আমি ছাড়া তার আর কোন স্ত্রী নেই।
এ ব্যাপারে প্রবাসী আকদ্দুছ আলীর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি সেলফোনে সাংবাদিকদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন।
বিশ্বনাথ থানার এসআই মো. তোফাজ্জল হোসেন বলেন, তারা এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open