কমলগঞ্জে বিদেশে পাঠানোর নাম করে কিশোরীকে আটকে নির্যাতনের অভিযোগ

Nirjaton Abuseকমলগঞ্জ প্রতিনিধি: সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং পাহাড় টিলার এক কিশোরীকে (১৫) প্রলোভন দেখিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে পাঠানোর নাম করে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে এনে একটি বাড়িতে আটকিয়ে নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গ্রামবাসীরা নির্যাতিতা কিশোরীকে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ থানায় নিয়ে গেলে রাতেই পুলিশ স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্যের জিম্মায় তাকে ফেরত দেয়। গত বুধবার (২৭ এপ্রিল) কিশোরীকে জাফলং থেকে এনে কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের বাদে উবাহাটা গ্রামের কালা মিয়ার বাড়িতে আটকিয়ে দুই দিন নির্যাতন করলে শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) রাতে গ্রামবাসীরা তাকে উদ্ধার করে।
জাফলং পাহাড় টিলার গ্রামের দরিদ্র রজব আলীর মেয়ে নির্যাতিতা কিশোরী জানায়, কমলগঞ্জ উপজেলার বাদে উবাহাটা গ্রামের জুসু বেগম (৪৫) ও কালা মিয়ার ছেলে লতিফ মিয়া (৩০) জাফলং পাথর কোয়ারীতে কাজ করত। কিশোরীও সেখানে তাদের সাথে কাজ করত। একসাথে কাজের সুবাদে লতিফ মিয়া ও তার বোন জুসু বেগম কিশোরীকে বিনা টাকায় মধ্যপ্রাচ্যে পাঠানোর প্রস্তাব দেয়। দরিদ্র কিশোরী ভাগ্য পরিবর্তনের প্রলোভনে পড়ে গত ২৭ এপ্রিল বুধবার রাত ১১টায় জুসু বেগম ও লতিফ মিয়ার সাথে বাদে উবাহাটা গ্রামে আসে। এখানে আসার পর প্রথমে লতিফ মিয়ার বাবা কালা মিয়া ও পরে লতিফ মিয়া কিশোরীর উপর শারীরিক নির্যাতন চালায়। পরে আলী বক্স নামের ৭০ বছর বয়সের এক বৃদ্ধের কাছে নগদ ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিয়ের উদ্যোগ গ্রহণ করে জুসু ও লতিফ। বিষয়টি জানাজানি হলে গ্রামবাসীরা কিশোরীকে উদ্ধার করে শুক্রবার রাত ১০টায় কমলগঞ্জ থানায় নিয়ে যায়।
থানায় নিয়ে গেলেও কিশোরীর বাড়ি সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলায় হওয়ায় এবং অপ্রাপ্ত বয়ষ্কের অজুহাত দেখিয়ে কমলগঞ্জ থানা কর্তৃপক্ষ কোন মামলা গ্রহণ না করে সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল লতিফের জিম্মায় তাকে (কিশোরীকে) দেয়। সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল লতিফ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনি জেলা পুলিশ সুপারকে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি তাকে গোয়াইনঘাট থানায় মামলা করার পরামর্শ দেন। এখন তিনি নির্যাতিতা কিশোরীকে নিয়ে বিপাকে আছেন।
কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ বদরুল হাসান বলেন, যেহেতু কিশোরীকে গোয়াইনঘাট থেকে আনা হয়েছে, সেহেতু সেখানেই মামলা করতে হবে। তবে শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় মুঠোফোনে কমলগঞ্জ থানায় সিনিয়র উপ পরিদর্শক জাহিদুল হক জানান, কিশোরীকে এখন থানায় এনে জবানবন্দি গ্রহণ করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open