হাওর ট্যুরিজম গড়ে তোলা হবে : সুনামগঞ্জে সংবাদ সম্মেলনে রাসেদ খান মেনন

0055বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী কমরেড রাশেদ খান মেনন বলেছেন, বর্তমান সরকার হাওড় এলাকার উন্নয়নে খুবই আন্তরিক। সুনামগঞ্জে হাওড় কেন্দ্রিক পর্যটন হাওড় ট্যুরিজম গড়ে তোলার উদ্যোগ নেওয়া হবে। এজন্য শীঘ্রই মন্ত্রণালয় থেকে সুনামগঞ্জে একটি প্রতিনিধি দল পাঠানো হবে। মঙ্গলবার বিকেলে সুনামগঞ্জে সার্কিট হাউসি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী আরো বলেন, লোক সংস্কৃতি সুনামগঞ্জ কে সমৃদ্ধি করছে। হাওড় ও প্রাকৃতি অপরূপ সৌন্দর্য এবং স্থানীয় মানুষের মরমী গান ও সুরকে সংরক্ষন করে পর্যটনের মাধ্যমে তুলে ধরা হবে। হাওড় ও পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থা এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। মন্ত্রী মঙ্গলবার সুনামগঞ্জের তাহেরপুর উপজেলার যাদুকাঠা নদীর তীরে আয়োজিত বারুণী মেলার ৫০০ বছর ও পর্যটন শিল্পের বিকাশ শীর্ষক একটি মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য সুনামগঞ্জে আসেন। কিন্তু ট্রাফিক ব্যবস্থার ও অব্যবস্থাপনার কারণে ৭/৮ কিলো জুড়ে শত শত গাড়ির যানজটের কারনে ঐ অনুষ্ঠানে যোগদান করতে পারেন নি। বিশ্বরম্বরপুর উপজেলার ধনপুর ইউনিয়নের চাতার কোন গ্রাম থেকে সুনামগঞ্জে ফিরে আসেন তিনি। যাদুকাটা নদীতে মঙ্গলবার হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূণ্য স্নান অনুষ্ঠিত হয়। বারুণী মেলার ৫০০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে না যেতে পেরে দু:খ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, স্থানীয় লোকদের কথা অনুযায়ী ‘সব তীর্থে বারবার পনাতীর্থে একবার’ বলার পর আমি যেতে না পারায় অতৃপ্তি নিয়েই ঢাকায় ফিরছি। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যর মধ্যে সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলার সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ এড. শাহানা রব্বানী, সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য কমরেড সিকান্দর আলী, হাওড় ও পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাশ্মির রেজা বক্তব্য দেন। সংবাদ সম্মেলনের আগে মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন সুনাগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী জাদুঘর পরিদর্শন করেন এবং জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে ঘরোয়া সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। সুনামগঞ্জ থেকে ফিরে এসে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা সিলেট স্ট্যাশন কাবে এসোসিয়েশন অব ট্রাভেল এজেন্ট অব বাংলাদেশের আয়োজনে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার কথা কেউ শুনেনা। অথচ সভার গালমন্দ আমার শুনতে হয়। আটাব এর বিভিন্ন দাবীর প্রেক্ষিতে তিনি আশ্বাস প্রদান করেন যে, সিলেট-লন্ডন ডাইরেক্ট ফাইট চালু হওয়ার কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। যার প্রথম ধাপ জ্বালানী তেলের সমস্যা ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। বাকী ৭৭৭ বড় জাহাজ অবতরণের জন্য যে অবকাঠামো রানওয়ের কাজ শেষ হলেই সিলেট বাসীর প্রাণের দাবী সিলেট-লন্ডন, লন্ডন- সিলেট ফাইট অচিরেই চালু হবে বলে তিনি মত প্রকাশ করেন এবং এটা চালু হলে সকলের থেকে তিনিই ব্যক্তিগত ভাবে খুশি হবেন বেশী। তিনি ঢাকা-সিলেট প্রতিদিন ২টা ফাট চালুর ব্যাপারে পদক্ষেপ নিবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন। তবে তিনি এইসব বাস্তবায়ন করার জন্য যে চার’শ কোটি টাকা প্রয়োজন তা যেন সিলেটের স্থানীয় নেতারা মাননীয় অর্থমন্ত্রী মহোদয়কে তাড়াতাড়ি যাতে দেন সে ব্যাপারে অনুরোধ করার জন্য বলেছেন। মতবিনিময় সভায় মাননীয় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী কমরেড রাশেদ খান মেনন এমপিকে আটাবের পক্ষ থেকে একটি স্মারক লিপি ও ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আলহাজ্ব শফিকুর রহমান, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্র্র্টির কেন্দ্রীয় সদস্য কমরেড সিকান্দার আলী, সিলেট জেলা প্রেসকাবের সভাপতি আজিজুর রহমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আশফাক আহমদ, আটাবের মহা সচিব আসলাম খান প্রমূখ।

Sharing is caring!

Loading...
Open